আজকাল ওয়েবডেস্ক: অসমে এনআরসি বা নাগরিকপঞ্জির ‌বলি এক যুবক। মায়ের নাম নেই নাগরিকপঞ্জিতে। ‘ফরেনার্স ‌ট্রাইবুনাল’–এ মামলা লড়তে লড়তে গচ্ছিত অর্থও শেষ। হাইকোর্টে মামলা লড়তে প্রয়োজন টাকার। কিন্তু পরিবারের অবস্থা নুন আনতে পান্তা ফুরোয়। শেষ পর্যন্ত আত্মহননের পথই বেছে নিলেন সমের তামুলপুরের দিমিলাপার বাকসার বাসিন্দা ৩৭ বছর বয়সি বিনয় চন্দ। রবিবার বাড়ির পাশে একটি গাছে তাঁর ঝুলন্ত দেহ পাওয়া যায়। জানা গিয়েছে, নাগরিকপঞ্জি প্রকাশিত হওয়ার পর দেখা যায় তাতে নাম নেই বিনয়ের মা শান্তি চন্দের। এরপর তিনি বারবার ট্রাইবুনালে দরবার করেছিলেন। তাতেই গচ্ছিত অর্থ খরচ হয়ে যায়। এদিকে, হাইকোর্টে মামলাও লড়তে হবে। প্রতিবেশীদের ধারণা, ২০ দিন আগেই পুত্রসন্তান জন্মেছিল বিনয়ের। পাশাপাশি নাগরিকপঞ্জিতে মায়ের নাম নেই। এই দুইয়ের ধাক্কাতেই চরম পথটি বেছে নিয়েছেন তিনি।  শান্তি চন্দের কথায়, ‘‌আমার ছেলে মানসিক অবসাদে ভুগছিল। আমাদের কাছে কোনও অর্থ ছিল না। আমরা দৈনিক মজুর। টাকা নেই, অথচ হাইকোর্টে মামলা লড়তে হবে। এই নিয়ে বাড়িতে রাগারাগিও করেছে।’‌ ‌‌

জনপ্রিয়

Back To Top