সমীর ধর, আগরতলা: করোনার থাবা এবার ত্রিপুরার মুখ্যমন্ত্রী বিপ্লবকুমার দেবের ঘরে। আক্রান্ত দু’‌জন। ঘরে রয়েছেন স্ত্রী নীতি দেব, এক ছেলে আর এক মেয়ে। ঠিক কোন্‌ দু’‌জনের করোনা হয়েছে, স্পষ্ট করেননি মুখ্যমন্ত্রী। তবে নীতির একটি ফেসবুক পোস্ট পড়ে তিনিও আক্রান্ত বলে মনে করা হচ্ছে। তিনি লিখেছেন, ‘‌... মা ত্রিপুরাসুন্দরীর আশীর্বাদ, ত্রিপুরাবাসী ও প্রিয়জনদের প্রার্থনার ওপর আমার দৃঢ় বিশ্বাস আছে। আমি এবং আমার পরিবারের সদস্য নিশ্চয়ই অতি শিগগিরই সুস্থ হয়ে উঠব এবং কোভিডের বিরুদ্ধে এই যুদ্ধে জয়লাভ করব।’‌
এদিকে বিপ্লব দেব টুইটে জানিয়েছেন, ‌নিজের কোভিড পরীক্ষার রিপোর্ট নেগেটিভ এলেও সরকারি আবাসেই মঙ্গলবার থেকে ৭ দিনের জন্য স্বেচ্ছা–নির্বাসনে থেকে তিনি সরকারি কাজকর্ম দেখবেন। পরিবারের দু’‌জনের কোভিড পজিটিভ, বাকিদের নেগেটিভ রিপোর্ট এসেছে। এ কথা জানিয়ে সোমবারই মুখ্যমন্ত্রী আরেকটি টুইটে বলেছিলেন, তাঁর নিজের রিপোর্টটি তখনও পর্যন্ত  আসেনি। মঙ্গলবার জানানো হয়, তাঁর নেগেটিভ এসেছে। প্রসঙ্গত, এর আগে বিপ্লবের সরকারি আবাসে এক নিরাপত্তা আধিকারিক, এক মহিলা নিরাপত্তারক্ষী–সহ অন্তত ৫ জন  নিরাপত্তা সংক্রান্ত সরকারি কর্মী করোনা–আক্রান্ত হওয়ার খবর ছিল। 
অন্য দিকে, বিজেপি–র বিপ্লব–বিরোধী গোষ্ঠীর নেতা বলে পরিচিত বিধায়ক সুদীপ রায়বর্মনের হুমকির জেরে প্রশাসন এক লাফ পেছনে সরে এসেছে। জেলাশাসক সন্দীপ মহাত্মে বলেন, প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টিনে না যেতে চাইলে না যাবেন। বাড়িতেই কোয়ারেন্টিন থাকুন বিধায়ক সুদীপ রায়বর্মন। এটা তাঁর নিজের এবং জনস্বাস্থ্যের জন্য দরকার। ভগৎ সিং যুব আবাসের কোভিড কেয়ার সেন্টারে ঢুকে পিপিই পরে রোগীদের মধ্যে ফল বিলি করায় এই জেলাশাসককে দিয়েই তাঁকে ৭ দিন বাধ্যতামূলক কোয়ারেন্টিন সেন্টারে পাঠানোর নির্দেশ দেওয়া হয়েছিল। কিন্তু সুদীপের বিরুদ্ধে পুলিশকে দিয়ে করানো মামলার কী হবে, সেটা পরিষ্কার করেননি মহাত্মে।‌‌

জনপ্রিয়

Back To Top