আজকাল ওয়েবডেস্ক:‌ পরস্পর ভিন্ন ধর্মের হওয়ায় এক যুগলকে ঘর দিতে নারাজ জয়পুরের একটি হোটেল। ঘটনাটি ঘটেছে গত শনিবার রাজস্থানের জয়পুরের টঙ্ক ফটক এলাকায় ওয়েও সিলভারকি হোটেলে। উদয়পুরের বাসিন্দা, ৩১ বছরের ওই সহকারী অধ্যাপক মুসলিম তিনি গত শনিবার সকালেই ওই হোটেলে ওঠেন। সেই দিন বিকেলে তাঁর হিন্দু বান্ধবীর আসার কথা ছিল। অধ্যাপকের অভিযোগ, তিনি গোআইবিবো–র সোশ্যাল সাইটে অবিবাহিত যুগলে আপত্তি নেই, এমন হোটেলের তালিকা দেখেই ওই হোটেলে রুম বুক করেছিলেন। হোটেলে চেক–ইনের পর নিজের রুমে গিয়ে কিছুক্ষণ বিশ্রাম নিয়ে যখন ফেরেন তখন তাঁকে হোটেল কর্তৃপক্ষ জিজ্ঞেস করে তাঁর বান্ধবী কোথায়। তিনি যখন তাঁর নাম বলে বলেন তিনি বিকেলে আসবেন, তখনই কর্তৃপক্ষ তাঁকে ঘর ছেড়ে দেওয়ার কথা বলে। অধ্যাপকের অভিযোগ, এব্যাপারে প্রশ্ন করলে হোটেল কর্তৃপক্ষ তাঁকে সাফাইয়ে বলে, তাঁরা অবিবাহিত এবং ভিন্ন ধর্মের বলেই তারা থাকতে দিতে পারে না। যদি তাঁরা এক ধর্মের অবিবাহিত যুগল হতেন তাহলে তাদের কোনও আপত্তি থাকত না। অধ্যাপক তখন হোটেলের লিখিত নিয়মাবলী দেখতে চাইলে তা দেখাতে পারেনি কর্তৃপক্ষ। শুধু বলে, তাদের এব্যাপারে নির্দেশ আছে। অধ্যাপক এরপর ওই হোটেল ছেড়ে দিলেও পুরো ঘটনাটি গোআইবিবোয় লিখিত অভিযোগে জানিয়ে বলেন, তিনি আইনমানা নাগরিক। কিন্তু এধরনের ঘটনা সম্পূর্ণ অনভিপ্রেত। কোম্পানিটি তৎক্ষণাৎ পদক্ষেপ করে তাঁদের অন্যত্র হোটেলের ব্যবস্থা করে দেয় এবং তাঁকে ক্ষতিপূরণ হিসেবে বুকিং–এর দ্বিগুণ ফেরত দেয়। অধ্যাপকের বান্ধবী বলেন, তাঁরা বিগত ১৩ বছর ধরে একসঙ্গে আছেন। কিন্তু এধরনের ঘটনার মুখোমুখি কোথাও কখনও হননি।        ‌‌

জনপ্রিয়

Back To Top