আজকাল ওয়েবডেস্ক:‌ টানা দু’‌বছর। ১২০ কিলোমিটার পথ হেঁটে ‘প্যারেন্ট–টিচার্স মিটিং’–এর রীতি এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছেন মণিপুরের চুড়াচাঁদপুর জেলার সেন্ট স্টিফেন ইংলিশ স্কুলের প্রধান শিক্ষক রবিন এস পুখরাম। শুধু তাই নয়, ১২ কিলোমিটার পাহাড়ি পথও পেরতে হয় তাঁকে। তাও স্কুলের পড়ুয়াদের বাবা–মায়েদের সঙ্গে কথা বলা চাই। স্কুলের অধিকাংশ ছেলে–মেয়েরা পাহাড়ি গ্রাম এলাকায় থাকে। প্রত্যেকেই গরিব পরিবার থেকে উঠে আসা। বাবা মা কৃষক–দিনমজুর। গোটা দিনের কাজ ফেলে শিক্ষকদের সঙ্গে কথা বলতে আসা অনেকের পক্ষেই সম্ভব হয় না। আবার আসতেও ২০০০ টাকা মতো গাড়ি ভাড়া দিতে হয়। তাই স্কুলের ‘‌রবিন স্যার’‌ ঠিক করেছেন, তিনি নিজেই যাবেন পড়ুয়াদের গ্রামে গ্রামে। পাশাপাশি গ্রামেই ছড়িয়ে ছিটিয়ে থাকে তারা। তাদের প্রত্যেকের বাবা–মায়ের সঙ্গে বাড়ি বাড়ি গিয়ে দেখা করার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন তিনি। বহাল তবিয়তে চালিয়েও যাচ্ছেন এই প্রক্রিয়া। সর্বভারতীয় সংবাদমাধ্যম সূত্রে খবর, ২০১৮ সাল থেকে ২৫টি গ্রামে গ্রামে ঘুরে এই ‘প্যারেন্ট–টিচার্স মিটিং’ করে চলেছেন প্রধান শিক্ষক রবিন এস। তাঁর সঙ্গে কয়েকজন শিক্ষকও যান। বেশ কিছুটা পথ গাড়িতে যেতে পারলেও অনেক ক্ষেত্রেই দুর্গম পাহাড়ি পথে জঙ্গলের মধ্যে দিয়ে হাঁটা ছাড়া তাঁদের কাছে অন্য কোনও উপায় থাকে না। খুব দূরের গ্রাম হলে রবিনবাবু ও তাঁর সহ শিক্ষকরা সেখানেই রাত্রিবাস করে পরের দিন ভোর বেলায় ফিরতি পথ ধরেন। অভিভাবকরাও শিক্ষকদের কালো চা দিয়ে আপ্যায়ন করে শোনেন স্কুলের উন্নয়নের কথা, জেনে নেন সন্তানের পড়াশুনোর হালহকিকত।
২০১৬ সালে এই স্কুলের দায়িত্ব নিয়ে দূরের পড়ুয়াদের থাকার জন্য নিজের সঞ্চয় খরচ করে একটি হোস্টেল নির্মাণ করিয়েছেন তিনি। মাত্র ২০০ টাকার বিনিময়ে পড়ুয়ারা সেখানে থেকে বিদ্যালয়ে পড়াশুনো করতে পারে। ২০১৫ সালে রবিনবাবু যখন স্কুলে প্রধান শিক্ষক হয়ে আসেন, তখন স্কুলে ৫০ জন পড়ুয়া পড়াশোনা করত। এখন স্কুলে পড়ে ৫৪৫ জন।

জনপ্রিয়

Back To Top