রাজীব চক্রবর্তী, দিল্লি: কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহর সঙ্গে বৈঠকে অসমে এনআরসি নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি। শাহকে তিনি বলে এলেন, ভারতীয়রা নতুন করে দেশছাড়া হতে পারেন না। অসমে এনআরসি তালিকা থেকে যে ১৯ লক্ষ মানুষ বাদ পড়েছেন, তাঁদের অনেকেই এ দেশের নাগরিক। ‌কাজেই নতুন করে পুনর্বিবেচনা করা হোক তালিকা। 
এই প্রথম অমিত শাহর মুখোমুখি হলেন মমতা। বৃহস্পতিবার দুপুরে নর্থ ব্লকে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রকে শাহর সঙ্গে বৈঠক করেন মুখ্যমন্ত্রী। সন্ধেয় দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী অরবিন্দ কেজরিওয়াল মমতার সঙ্গে দেখা করেন। শুক্রবার দুপুরে কলকাতায় ফিরবেন মুখ্যমন্ত্রী। গতকাল মমতার সঙ্গে দেখা করেছেন কংগ্রেস নেতা আহমেদ প্যাটেল ও অভিষেক মনু সিংভি। সূত্রের খবর, এদিনের বৈঠকে কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীকে মমতা সাফ জানিয়ে এসেছেন, বাংলায় এনআরসি নিয়ে অযথা যেন আতঙ্ক না–ছড়ানো হয়। সেইসঙ্গে অসমে এনআরসি তালিকায় সংশোধনের দাবি জানিয়েছেন তিনি। বৈঠক শেষে মুখ্যমন্ত্রী বলেন, ‘‌প্রথমবার অমিত শাহর সঙ্গে বৈঠক হল। এর আগে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী রাজনাথ সিংয়ের সঙ্গে দেখা করেছি। এমনিতে দিল্লিতে কম আসি। গতকাল কয়েকটি দাবি নিয়ে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে দেখা করেছি। সাংবিধানিক দায়বদ্ধতা থেকে সাক্ষাৎ করতেই হয়। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী দাবি বিবেচনার আশ্বাস দিয়েছেন। আশাকরি উনি (‌শাহ)‌ ব্যবস্থা নেবেন।’‌
এক প্রশ্নের জবাবে মুখ্যমন্ত্রী বলেন, ‘‌বাংলায় ডিজিটাল রেশন কার্ড তৈরি হচ্ছে। কিন্তু, এনআরসি-‌র আতঙ্কে বাংলাতেও লক্ষ লক্ষ মানুষ লাইনে দাঁড়িয়ে পড়ছেন। এমন পরিস্থিতি কেন হবে!‌ স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী মন দিয়ে সব শুনেছেন।’‌
শাহকে মমতা বলেছেন, পশ্চিমবঙ্গের সঙ্গে বাংলাদেশ, নেপাল ও ভুটানের সীমান্ত রয়েছে। উত্তর-‌পূর্বের গেটওয়ে বাংলা। পশ্চিমবঙ্গের উত্তরতম অংশের বেশ কিছুটা জায়গা ‘‌চিকেন নেক’‌। তাই অসমের এনআরসি তালিকা সংবেদনশীল ভাবে আবার সংশোধন করা উচিত। 
এ ব্যাপারে অমিত শাহকে একটি চিঠি দিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী। তাতে তিনি বলেছেন, ‘‌অসমে এনআরসি তালিকা থেকে ১৯ লক্ষ মানুষের নাম বাদ পড়েছে। তারমধ্যে বাংলাভাষী, হিন্দিভাষী, হিন্দু, মুসলিম এবং গোর্খাদের নাম আছে। ভারতীয়রা নতুন করে দেশছাড়া হতে পারেন না।’‌ সাংবাদিকদের প্রশ্নের উত্তরে মুখ্যমন্ত্রী সাফ জানিয়ে দিয়েছেন, ‘‌বাংলায় এনআরসি প্রসঙ্গ ওঠেনি। ওঠার কথাও নয়। কারণ, পশ্চিমবঙ্গে এনআরসি-‌র কোনও প্রাসঙ্গিকতা নেই।’‌
বুধবার বিকেলে রাজ্যের উন্নয়নে থমকে থাকা একগুচ্ছ ইস্যু নিয়ে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির সঙ্গে প্রায় ৪০ মিনিট কথা বলেছেন মুখ্যমন্ত্রী। তারপর নিজেই স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে দেখা করার কথা জানিয়েছিলেন। শাহ ঝাড়খণ্ডে ছিলেন। মুখ্যমন্ত্রীর তরফে সময় চাওয়া হয়েছিল। এদিন দুপুর দেড়টায় সময় দেওয়া হয়। সেইমতো প্রায় আধ ঘণ্টা কথা হয় মমতা-‌শাহর।
‌এদিন সন্ধ্যায় দিল্লির সাউথ অ্যাভিনিউয়ে মুখ্যমন্ত্রীর সঙ্গে দেখা করতে আসেন আপ প্রধান তথা দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী অরবিন্দ কেজরিওয়াল। প্রায় ৪৫ মিনিট বৈঠক হয়েছে। বৈঠকে দিল্লির আগামী বিধানসভা নির্বাচনে আম আদমি 
পার্টির প্রস্তুতি নিয়ে আলোচনা হয়েছে। কেজরিওয়ালকে বেশ কিছু পরামর্শ দিয়েছেন মমতা। আলোচনা হয়েছে জাতীয় রাজনৈতিক পরিস্থিতি নিয়েও।
পরে মুখ্যমন্ত্রীর সঙ্গে দেখা করেন বেঙ্গল ক্যাডারের আইএএস এবং আইপিএস আধিকারিকেরা। দিল্লিতে কর্মরত আমলাদের বেশির ভাগই আগে বাংলায় কাজ করে এসেছেন। মুখ্যমন্ত্রীর সঙ্গে প্রত্যেকের সুসম্পর্ক রয়েছে। আমলাদের সঙ্গে মুখ্যমন্ত্রীর এদিনের সাক্ষাৎ ছিল সৌজন্যমূলক। কাল, শুক্রবার দুপুর ২টো ২০ মিনিটের বিমানে রাজ্যে ফিরবেন মুখ্যমন্ত্রী।

 

 

নর্থ ব্লকের বাইরে মুখ্যমন্ত্রী। ছবি: আজকাল

জনপ্রিয়

Back To Top