আজকাল ওয়েবডেস্ক:‌ অভিযুক্ত সিরিয়াল কিলার গৃহবধূ জলি শাজুকে বৃহস্পতিবার ৬ দিনের পুলিসি হেফাজতের নির্দেশ দিল কেরলের কোঝিকোড়ের একটি আদালত। এই মামলার পরবর্তী শুনানি আগামী বুধবার। পুলিস আদালতে আবেদনে বলেছিল জলিকে নিজেদের হেপাজতে নিয়ে আরও জিজ্ঞাসাবাদ করতে চায় তারা। বিচারক পুলিসের সেই আবেদন গ্রহণ করেছেন। এদিন কড়া পুলিসি নিরাপত্তায় ৪৭ বছরের জলিকে আদালতে তোলা হয়। তাকে দেখতে ভিড়ে উপচে পড়েছিল সারা আদালতজুড়ে। জলির সঙ্গেই এই মামলায় অভিযুক্ত তার দুই সঙ্গী ৪৪ বছরের এমএস ম্যাথিউ এবং ৪৮ বছরের প্রাজিকুমারকেও ৬ দিনের পুলিসি হেপাজতের নির্দেশ দিয়েছেন বিচারক।  হত্যার সময়কাল ২০০২–২০১৬ পর্যন্ত লম্বা হওয়ায় এবং মৃতদেহগুলি নষ্ট হয়ে যাওয়ায় সেগুলি পরীক্ষা করতে তদন্তের স্বার্থে দেশ–বিদেশের সেরা বিশেষজ্ঞদের সাহায্য চাওয়া হবে। বৃহস্পতিবার একথা জানালেন কেরল পুলিসের ডিজি লোকনাথ বেহরা। আপাতত পুলিস তথ্যপ্রমাণ জোগারের চেষ্টা করছে। পাড়ায় এবং পরিবারের মধ্যে হাসিখুশি, দায়িত্ব পরায়ণ বলে পরিচিত জলি যে এভাবে খুন করতে পারে সেকথা আজও বিশ্বাস করতে পারেননি এদিন আদালতে তাকে দেখতে আসা তার পরিচিতজনেরা।

 
মামলার তদন্তকারী অফিসার কে জি সাইমন বলেছেন, জলি তাঁদের কাছে জেরায় স্বীকার করেছে সম্পত্তি এবং টাকার লোভেই সে সবাইকে খুন করেছে সায়নায়েড দিয়ে। জেরায় সে বলেছে, পরিবারের সদস্যদের উপর এবং আর্থিক লেনদেনে সম্পূর্ণ কর্তৃত্ব পেতে ২০০২ সালে শাশুড়ি আন্নাম্মা টমাসকে প্রথমে সাইনায়েড দিয়ে খুন করেছিল। তারপর শ্বশুর টমকে খুন করে। তার তৃতীয় শিকার প্রাক্তন স্বামী রয় এবং তারপর রয়ের মামা ম্যাথিউ। কারণ রয়ের মৃত্যুর পর সন্দেহ হওয়ায় ম্যাথিউ ভাগ্নের দেহের ময়নাতদন্ত করতে চেয়েছিলেন। তারপর রয়ের ভাই এবং জলির বর্তমান স্বামী শাজুর একবছরের মেয়ে অ্যালপাইনকে হত্যা করে। সাইমন বলেছেন, স্থানীয় থানা থেকে তাঁরা জানতে পেরেছেন, শিশুটির গলায় খাবার আটকে গিয়ে মৃত্যু হয়েছিল বলে প্রাথমিক রিপোর্টে লেখা হয়েছিল। তারপর শাজুর প্রাক্তন স্ত্রী তথা জলির তৎকালীন জা ফিলিকে একইভাবে সায়নায়েড মিশ্রিত জল পান করিয়ে খুনের পর শাজুকে বিয়ে করে জলি। 

জনপ্রিয়

Back To Top