প্রসেনজিৎ আচার্য: সিম কার্ড ছাড়াই জঙ্গিরা মোবাইল ফোনে কথাবার্তা চালাত এবং সাঙ্কেতিক তথ্য আদান প্রদান করত। প্রযুক্তির পরিভাষায় একে বলা হয় ‘‌প্রটেকটেড টেক্সট’‌। এসটিএফ গোয়েন্দারা তদন্তে নেমে জেএমবি জঙ্গি ইজাজ আহমেদকে জিজ্ঞাসাবাদ করেই এই তথ্য জানতে পেরেছে। মঙ্গলবার জেএমবি–র ওই জঙ্গি ইজাজ আহমেদকে ব্যাঙ্কশাল আদালতে হাজির করে পুলিশ। মুখ্য সরকারি কৌঁসুলি অভিজিৎ চ্যাটার্জি সওয়ালে বলেন, খাগড়াগড় মামলায় ধৃত অন্য জেএমবি জঙ্গি কৌসরকে জেল থেকে আদালতে আনার পথে মাঝরাস্তা থেকেই ছিনিয়ে নেওয়ার পরিকল্পনা করেছিল বেশ কয়েকজন জঙ্গি। তাদের মধ্যে ইজাজ আহমেদ অন্যতম। সে এ রাজ্য–সহ ভারতের অন্যান্য রাজ্যে জেএমবি–র জঙ্গি কার্যকলাপের অন্যতম মূল মাথা ছিল। এ ছাড়াও গোয়েন্দারা তদন্তে নেমে উত্তর দিনাজপুরে একটি পরীক্ষাগারের হদিশ পেয়েছে। যেখানে আইইডি, ডিটোনেটর, টাইমার মেশিন–সহ অন্যান্য সরঞ্জাম পাওয়া গেছে। পৃথক পৃথক দুটি মামলাতেই এদিন ব্যাঙ্কশাল আদালত ইজাজ আহমেদকে ১৪ দিনের জন্য জেল হেফাজতে পাঠিয়েছে। ইজাজের বিরুদ্ধে আদালতে ভারতীয় দণ্ডবিধির ১২১, ১২১এ, ১২০বি ধারায় মামলা রুজু হয়েছে। এছাড়াও ৪ এবং ৫ বিস্ফোরক দ্রব্য আইনে মামলা চলছে।

জনপ্রিয়

Back To Top