আজকাল ওয়েবডেস্ক:‌ দেশজুড়ে শুরু হয়ে গিয়েছে বিশ্বের বৃহত্তম টিকাকরণ অভিযান। শনিবার কর্মসূচির সূচনা করলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। জাতির উদ্দেশে ভাষণে কোভিড যোদ্ধাদের প্রশংসায় পঞ্চমুখ প্রধানমন্ত্রী। বলেন, ‘‌সঙ্কটের দিনে তাঁরাই আমাদের আশার আলো দেখিয়েছেন। আমাদের বাঁচাতে তাঁরা জীবনের ঝুঁকি নিয়েছেন। বাড়ির বাইরে থেকে, পরিবার–পরিজনদের থেকে দূরে থেকে দিনের পর দিন ত্যাগ স্বীকার করে গেছেন চিকিৎসক, নার্স, আশাকর্মী, পুলিশেরা। তাই শুরুতেই তাঁদের টিকা দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।’‌ 
টিকাকরণ কর্মসূচিতে অংশ নিতে এদিন দিল্লির এইমস–এ পৌঁছে গিয়েছেন কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রী হর্ষ বর্ধন। তাঁর উপস্থিতিতেই প্রথম টিকা নেন মণীশ কুমার নামে সাফাইকর্মী। টিকা নিয়েছেন এইমস ডিরেক্টর রণদীপ গুলেরিয়াও। টিকাকরণ অভিযানে যাঁরা অংশ নিয়েছেন, তাঁদের স্বাগত জানাতে পুণের আউন্ধ জেলার একটি হাসপাতাল এদিন রঙ্গোলি এঁকে গোচা চত্বর সাজিয়ে তোলা হয়। এক স্বাস্থ্যকর্মী বলেন, ‘‌টিকাকরণ শুরু হচ্ছে, হাঁপ ছেড়ে বাঁচলাম। কোভ্যাকসিনের প্রথম ডোজ আমিই পেতে চলেছি।’‌ 
টিকাকরণ কর্মসূচি নিয়ে গুজবে কান দিতে বারণ করেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। বলেন, ‘‌দু’‌টি টিকার ট্রায়ালের রিপোর্ট ভাল করে যাচাই করার পরই ছাড়পত্র দিয়েছে ডিজিসিআই। ভারতে তৈরি টিকার বিশ্বজুড়ে নাম রয়েছে।’‌ প্রথম ডোজ নেওয়ার ২৮ দিন পর দ্বিতীয় ডোজটিও নেওয়া অত্যন্ত জরুরি, জানালেন তিনি। বলেন, ‘‌দ্বিতীয় ডোজ নেওয়ার সপ্তাহ দুয়েক পর থেকেই শরীরে সঠিক মাত্রায় রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা গড়ে উঠতে দেখা যাবে।’‌ স্বাস্থ্যমন্ত্রক সূত্রে খবর, পরের দফার টিকাকরণ কর্মসূচিতে পঞ্চাশোর্ধ ব্যক্তি এবং পঞ্চাশের নীচে থাকা ঝুঁকিপূর্ণদের টিকা দেওয়া হবে।   

 

জনপ্রিয়

Back To Top