আজকাল ওয়েবডেস্ক:‌ দেশকে পাঁচ ট্রিলিয়ন ডলার অর্থনীতিতে পৌঁছে দেওয়ার সংকল্প নিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী। কেন্দ্রে দ্বিতীয়বার ক্ষমতায় আসার পরই একথা ঘোষণা করেছেন তিনি। আর তারপর থেকেই শুরু হয়ে গিয়েছে ‘‌পাঁচ ট্রিলিয়ন ডলার’–এর নামে নাচানাচি। বিজেপির সকল ছোট বড় নেতা নেত্রীদের মুখে এখন শুধু পাঁচ ট্রিলিয়ন ডলার। অথচ তাঁদের অনেকে জানেনই না, পাঁচের পেছনে ঠিক কটা শূন্য বসলে তবে গিয়ে পাঁচ ট্রিলিয়ন ডলার হয়। আর ঘটলও ঠিক।
পাঁচ ট্রিলিয়ন ডলার অর্থনীতি প্রসঙ্গে কথা বলতে গিয়েই দর্শকদের সামনে একেবারে অপ্রস্তুত হয়ে পড়েছেন বিতর্কিত বিজেপির মুখপাত্র সম্বিত পাত্র। গত ১০ সেপ্টেম্বর একটি সংবাদমাধ্যমে বিতর্ক সভায় অংশ নিয়েছিলেন তিনি। সেখানে কংগ্রেস নেতা গৌরব বল্লভ তাঁকে প্রশ্ন করে বসেন, ‘‌বলুন তো পাঁচ ট্রিলিয়নের পেছনে কটা শূন্য বসে?‌’‌ এই প্রশ্ন শুনেই সম্বিত পাত্রের মাথায় আকাশ ভেঙে পড়ে। বিতর্ক এড়াতে নিজের স্বভাবসিদ্ধ চালে ইস্যুটাকেই বদলে দেওয়ার যথাসাধ্য চেষ্টা করেন তিনি। যদিও তাতে কোনও লাভ হয়নি। উত্তর দিতে না পারায় দর্শকদের হাততালিতে আরও অপ্রস্তুত হয়ে পড়েছিলেন তিনি। বাধ্য হয়ে প্রশ্নকর্তাকে উত্তর দিতে হয়। কংগ্রেস নেতা গৌরব বল্লভ বলেন, ‘‌পাঁচের পেছনে ১২টি শূন্য বসলে পাঁচ ট্রিলিয়ন ডলার হয়।’‌
বেহাল অবস্থা গোটা দেশের অর্থনীতিতে। চাকরি নেই। দিনে দিনে বাড়ছে বেকারত্ব। বন্ধ হয়ে যাচ্ছে একের পর এক কোম্পানি। ধসে পড়ছে দেশের জিডিপি। সেবিষয়ে দৃষ্টিপাত করারই প্রয়োজন মনে করছেন না দেশের প্রধানমন্ত্রী, অর্থমন্ত্রী। অর্থনীতিবিদদের বক্তব্য, আগামী পাঁচ বছরে দেশের অর্থনীতিকে পাঁচ ট্রিলিয়ন ডলারে নিয়ে যেতে হলে এই মুহূর্তে দেশের জিডিপির হার হত হবে ১২ শতাংশের বেশি। যা অসম্ভবের চেয়ে কিছু কম নয়। দেশের অর্থনীতিকে সামাল দিতে একেবারে হিমসিম খাচ্ছেন অর্থমন্ত্রী। ‌‌

জনপ্রিয়

Back To Top