আজকাল ওয়েবডেস্ক:‌ এবার বিহার। পরিবারের সম্মান রক্ষার্থে যুগলকে কুপিয়ে খুন করা হল। শুধু তাই নয়, প্রমাণ লোপাট করতে দেহ দু’‌টি দাহ করার চেষ্টাও করল পরিবারের লোক জন। খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পৌঁছয় পুলিশ। বিহারের অওরঙ্গাবাদের ঘটনা। 
অওরঙ্গাবাদের সুপার পঙ্কজ কুমার জানিয়েছেন, দু’‌জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। আরও তিন জনকে আটক করেছে পুলিশ। সকলেই ওই যুগলের পরিবারের সদস্য। 
১৯ বছরের তরুণী আর ২২ বছরের তরুণ, দু’‌জনেই কাপাসিয়া গ্রামের বাসিন্দা। দু’‌ বছর ধরে সম্পর্ক রয়েছে তাঁদের। পুলিশের ধারণা, পরিবার এই সম্পর্ক মেনে নেয়নি। পুলিশ সুপার জানালেন, শনিবার সকালে বয়ফ্রেন্ডের বাড়ি যান তরুণী। খবর পেয়ে পৌঁছে যায় তাঁর পরিবারের লোকজন। তখন ছেলেটির বাড়িতে কেউ ছিলেন না। মেয়েটির দাদা তাঁকে ঘরে ফিরতে বলেন। মেয়েটি অস্বীকার করায় দু’‌জনকেই কুপিয়ে মেরে ফেলে সে। 
এর পর দু’‌জনের দেহ নদীর তীরে দাহর জন্য নিয়ে যায়। স্থানীয় কয়েক জনের চোখে পড়ে বিষয়টি। খবর দেন থানায়। পুলিশ ছুটে যায় ঘটনাস্থলে। দাহ বন্ধ করে অর্ধদগ্ধ দেহ দু’‌টি বাজেয়াপ্ত করে। ময়নাতদন্তের জন্য পাঠানো হয়েছে। 
এসপি জানালেন, এফআইআর দায়ের হয়েছে। দুই পরিবারের ১০ থেকে ১২ জনের বিরুদ্ধে অভিযোগ রয়েছে। ছেলেটির দাদা এবং কাকাকেও আটক করা হয়েছে। এই ঘটনায় তাদেরও হাত রয়েছে বলে সন্দেহ পুলিশের। পরিবারের সম্মান রক্ষার্থে খুন অবশ্য এদেশে নতুন নয়। ২০১৮ সালে ২১৮ জন পরিবারের সম্মান রক্ষার্থে খুন হয়েছেন। এমনকী উপমহাদেশেই আকছাড় ঘটে। সবথেকে বেশি হয় পাকিস্তানে। 

জনপ্রিয়

Back To Top