আজকাল ওয়েবডেস্ক:‌ দেশে করোনার গ্রাফ ঊর্ধ্বমুখী। দৈনিক সংক্রমণ গত কয়েক দিন ধরে সাড়ে তিন লাখের বেশি। রোজ কোভিডে মারা যাচ্ছেন অন্তত ৩০০০ জন। এই পরিস্থিতিতে ১৮ বছরের বেশি বয়সি সকল নাগরিককে টিকা দেওয়ায় ছাড় দিয়েছিল কেন্দ্র। কিন্তু নেওয়ার লোক থাকলেও টিকার আকাল দেশজুড়ে। এই পরিস্থিতিতে তেমন ইতিবাচক আশ্বাস দিতে পারলেন না খোদ টিকা উৎপাদনকারী সংস্থার কর্তা। সেরাম ইনস্টিটিউট–এর কর্তা আদর পুনাওয়ালা জানিয়ে দিলেন জুলাই পর্যন্ত জারি থাকবে এই পরিস্থিতি। 
একটি সর্বভারতীয় সংবদা মাধ্যমকে সাক্ষাৎকারে আদর বললেন, ‘‌জুলাই মাসের পরে আবার টিকার জোগান বাড়বে। ততদিন টিকার অভাব থাকবে। জুলাই মাসের পর টিকার মাসিক উৎপাদন ৭ থেকে বেড়ে ১০ কোটি হবে।’ 
কিন্তু কেন হঠাৎ টিকার এই অভাব দেখা দিয়েছে?‌ সেই প্রশ্ন কিন্তু ক্রমাগতই উঠছে। আঙুল উঠছে মোদি সরকার তথা টিকা উৎপাদনকারী সংস্থার দিকেও। এই প্রসঙ্গে আদর বললেন, তাঁরা আশা করেননি এত তাড়াতাড়ি করোনার দ্বিতীয় ঢেউ চলে আসবে। সবাই ভেবেছিলেন ভারতে কোভিড পরিস্থিতির ধীরে ধীরে উন্নতি হচ্ছে। সেই কারণেই অতিরিক্ত টিকা উৎপাদন করার কোনও নির্দেশ তাদের দেওয়া হয়নি।
তাঁর ক্ষোভ, যে কিছু সমালোচক আর রাজনীতিক অকারণেই তাঁকে এবং তাঁর সংস্থাকে টিকার অভাবের জন্য দায়ী করছেন। ‘‌আমাকে অন্যায়ভাবে এবং ভুলভাবে অভিযুক্ত করা হচ্ছে। আমাদের কোনও নির্দেশই দেওয়া ছিল না। তাই ভাবিনি, বছরে ১০০ কোটির বেশি ডোজ তৈরি করতে হবে।’‌ আশ্বাস দিয়েছেন, জুলাই থেকেই বাড়বে টিকার জোগান। 

Back To Top