সংবাদ সংস্থা, দিল্লি, ২৮ মে- প্রবীণ নাগরিক–‌সহ সাধারণ আমানতকারীদের উদ্বেগ বাড়িয়ে ফিক্সড ডিপোজিট বা স্থায়ী আমানতে সুদের হার ফের কমাল স্টেট ব্যাঙ্ক। বিভিন্ন মেয়াদি আমানতে সুদ কমছে ৪০ বেসিস পয়েন্ট। এই নিয়ে গত তিন মাসে চার বার। তবে এবার সুদ কমানোর হার অনেক বেশি। সব মিলিেয় গত ৭৮ দিনে এসবিআই–‌এর বিভিন্ন স্থায়ী আমানতে সুদ কমল ১.১ শতাংশ। এর জেরে ফিক্সড ডিপোজিট থেকে সুদ বাবদ আয় কমছে ২৭.৫%। অর্থাৎ ১ লক্ষ টাকার ফিক্সড ডিপোজিট করা থাকলে আগে সুদ পাওয়া যেতে বছরে ৫,৫০০ টাকা। নতুন সুদের হারে তা কমে হবে ৪,৪০০ টাকা। মানে প্রতি লাখে সুদ কমবে ১,১০০ টাকা। ফলে অদূর ভবিষ্যতে যঁাদের ফিক্সড ডিপোজিট পুনর্নবীকরণ করতে হবে কিংবা যঁারা নতুন করে ফিক্সড ডিপোজিট করবেন, তঁাদের সকলেরই সুদ বাবদ আয় কমবে।
চলতি মাসের ২৭ তারিখ থেকে এসবিআইয়ের ফিক্সড ডিপোজিটে এক বছরে সুদের হার ৫.৫% থেকে কমে হচ্ছে ৫.১%। তা ছাড়া ১, ২ ও ৩ বছরের ফিক্সড ডিপোজিটেও এখন থেকে সুদ মিলবে কার্যত বার্ষিক মাত্র ৫.১ শতাংশ হারে। তবে প্রবীণ নাগরিকেরা আগের মতোই অতিরিক্ত ০.৫ শতাংশ বাড়তি সুদ পাবেন। এ ছাড়া ‘এসবিআই উইকেয়ার’ নামে বিশেষ ডিপোজিট স্কিমে তঁারা পাবেন ৮০ বেসিস পয়েন্ট বাড়তি সুদ। এ বছরের ৩০ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত ওই স্কিমে বিনিয়োগের সুযোগ মিলবে।
কিন্তু কেন এত ঘন ঘন সুদ কমিয়ে প্রবীণ নাগরিক–‌সহ সাধারণ গ্রাহকদের সমস্যায় ফেলছে ব্যাঙ্কগুলি? ব্যাঙ্কগুলিকে ধার দিতে উৎসাহিত করতে গত সপ্তাহেই রেপো রেট ৪০ বেসিস পয়েন্ট কমিেয়ছে রিজার্ভ ব্যাঙ্ক। কিন্তু সঙ্কটগ্রস্ত অর্থনীতির কারণে বাজারে এখন ঋণের চাহিদা নেই। আবার অনিশ্চয়তার বাজারে ব্যাঙ্কেই টাকা জমা রাখতে চান মানুষ। তাই টাকা জমে যাচ্ছে ব্যাঙ্কে। টাকা ঋণে না–‌খাটালে ব্যাঙ্কের আয় হয় না। আয় না–‌হলে আমানতকারীদের সুদ দেবে কীভাবে ব্যাঙ্ক? তাই সেভিংস ও ফিক্সড ডিপোজিটে সুদের হার কমিয়ে ক্ষতির ধাক্কা সামলাতে চাইছে ব্যাঙ্কগুলি। এতে কোপ পড়ছে সেই আমানতকারীদেরই ওপর। লক্ষণীয় যে, রেপো রেট ও এসবিআই–‌এর মেয়াদি আমানতে সুদের হার, দুটোই কমেছে ৪০ বেসিস পয়েন্ট। তা ছাড়া শেয়ার ও মিউচুয়াল ফান্ডের বাজারে অনিশ্চয়তা। ঝুঁকির বিনিয়োগ না করে ব্যাঙ্কেই টাকা রাখতে চাইছেন মানুষ। সেই পরিস্থিতির সুযোগ নিয়েই ব্যাঙ্ক দফায় দফায় সুদ কমাচ্ছে কি না, এমন প্রশ্নও উঠছে। এই পরিস্থিতিতে সেভিংসেও পড়তি সুদের হার থেকে বঁাচতে সুইপ ইন ফিক্সড ডিপোজিটে চলে যাওয়ার পরামর্শ দিচ্ছে অনেক সংস্থা। এতে সেভিংস অ্যাকাউন্টের সঙ্গে ফিক্সড ডিপোজিটকে জুড়ে দেওয়া হয়। পুরো টাকার ওপর সুদের হার হয় ফিক্সডের মতোই। সেভিংসে যে–‌টাকা রয়েছে, জরুরি দরকার পড়লে তার সঙ্গে ফিক্সডের টাকাও খরচ করতে পারবেন গ্রাহক। এতে ফিক্সড ডিপোজিট ভেঙে ফেলার জরিমানা থেকে রেহাই মিলবে। তবে এ–‌ক্ষেত্রে বিশদে নিয়মকানুন জেনে নেওয়া দরকার।

জনপ্রিয়

Back To Top