আবু হায়াত বিশ্বাস, দিল্লি, ২১ অক্টোবর- বিজেপি–র জয়ের ইঙ্গিত দিয়েছিল প্রাক–নির্বাচনী সমীক্ষা। বুথফেরত সমীক্ষা বলছে, গেরুয়া–ঝড় আসতে চলেছে মহারাষ্ট্র ও হরিয়ানায়। বিধানসভা নির্বাচন শেষ হতেই দেশের সব ক‌’‌টি বুথফেরত সমীক্ষা বলছে, দুই রাজ্যেই বিপুল সংখ্যাগরিষ্ঠতা নিয়ে ফের বিজেপি বা তার নেতৃত্বাধীন জোট ক্ষমতায় আসতে চলছে। বুথফেরত সমীক্ষাগুলির গড় বলছে, মহারাষ্ট্রের ২৮৮ আসনের মধ্যে বিজেপি–শিবসেনা পেতে পারে ২১১, কংগ্রেস–এনসিপি জোট ৬৪ ও অন্যরা ১৩ আসন। ওই রাজ্যে ম্যাজিক সংখ্যা ১৪৫। হরিয়ানায় ৯০ আসনের মধ্যে (‌ম্যাজিক সংখ্যা ৪৬)‌ বিজেপি ৬৬, কংগ্রেস ১৪, আইএনএলডি–অকালি ২ ও বাকিরা ৮ আসন পেতে পারে। বাকিদের মধ্যে আছে দুষ্মন্ত চৌটালার জননায়ক জনতা পার্টি।
মাস পাঁেচক আগেই লোকসভা নির্বাচনে বিপুল  ভোটে জিতে কেন্দ্রে ক্ষমতায় ফিরেছে নরেন্দ্র মোদির নেতৃত্বাধীন এনডিএ জোট। দ্বিতীয় মোদি সরকার গঠনের পর ‌এই প্রথম কোনও রাজ্যে বিধানসভা নির্বাচন হল। সেই নির্বাচনেও গেরুয়া শিবিরের জয়জয়কারের ইঙ্গিত বুঝিয়ে দিচ্ছে, মোদি–ম্যাজিক এখনও অক্ষুণ্ণ। বিধানসভা নির্বাচনে বিরোধীরা টক্কর দিয়েছে, এমন ইঙ্গিত অন্তত বুথফেরত সমীক্ষা বলছে না। 
এবিপি সি–‌ভোটার সমীক্ষায় বলা হয়েছে, মহারাষ্ট্রে বিজেপি–‌শিবসেনা জোট ২০৪ আসন, কংগ্রেস–‌এনসিপি জোট ৬৯ আসন এবং অন্যরা ১৫ আসন পেতে পারে। বিজেপি–শিবসেনা ৪৬ শতাংশ, কংগ্রেস–এনসিপি ৩৭ শতাংশ এবং অন্যরা ১৭ শতাংশ ভোট পেতে পারে। ইন্ডিয়া টুডে–‌অ্যাক্সিস মাই ইন্ডিয়ার এগজিট পোল বলছে, বিজেপি জোট ১৬৬–‌১৯৪ আসন, কংগ্রেস জোট ৭২ থেকে ৯০ আসন এবং অন্যরা ২২ থেকে ৩৪টি আসন পেতে পারে। টাইমস নাউ বুথফেরত সমীক্ষা বলছে, বিজেপি ২৩০ আসন, কংগ্রেস ৪৮ এবং অন্যরা ১০টি আসন পেতে পারে। আজ তক–‌অ্যাক্সিস সমীক্ষায় উঠে এসেছে, বিজেপি জোট ১৮০ আসন পেতে পারে। কংগ্রেস জোট পেতে পারে ৮১ আসন। অন্যরা পেতে পারে ২৭ আসন। নিউজ ১৮–আইপিএসওএস এগজিট পোল বলছে, বিজেপি জোট ২৪৩ আসন, কংগ্রেস জোট ৪১ আসন, এআইএমএম ১ এবং অন্যরা ৩টি আসন পেতে পারে। রিপাবলিক–জনকি বাত বলছে, এককভাবে বিজেপি ১৩৫ থেকে ১৪২ আসন, জোট সঙ্গী শিবসেনা ৮১ থেকে ৮৮ আসন পাবে। কংগ্রেস ২০–‌২৪ আসন পেতে পারে। অন্যরা ৮ থেকে ১২ আসন পেতে পারে।
হরিয়ানায় এবিপি সি–‌ভোটারের সমীক্ষা অনুযায়ী ৭২টি বিজেপি, কংগ্রেস ৮ এবং অন্যরা ১০টি আসন পেতে পারে। আইএএনএস–‌সি ভোটারের সমীক্ষায় বলা হয়েছে, ৬৮ থেকে ৭২ আসন পেতে পারে বিজেপি। কংগ্রেস পেতে পারে ৩ থেকে ১৪ আসন। অন্যরা ৫ থেকে ১৪ আসন। নিউজ ১৮–‌আইপিএসওএস সমীক্ষা বলছে, বিজেপি ৭৫ আসন পেতে পারে। কংগ্রেস ১০টি আসন, জননায়ক জনতা পার্টি ২টি পেতে পারে। ‌টাইমস নাউ সমীক্ষায় উঠে এসেছে, বিজেপি ৭১, কংগ্রেস ১১ এবং অন্যরা ৮ আসন পেতে পারে। রিপাবলিক–জনকি বাত সমীক্ষার ইঙ্গিত, বিজেপি ৫২ থেকে ৬৩ আসন এবং কংগ্রেস ১৫ থেকে ১৯ আসন পেতে পারে। টিভি নাইন–ভারতবর্ষ বুথফেরত সমীক্ষা বলছে, বিজেপি ৪৭, কংগ্রেস ২৩ এবং অন্যরা ২০ আসন পেতে পারে।
গত কয়েক মাসে দেশের অর্থনীতিতে সঙ্কট বেড়েছে। বেকারত্বের হার সর্বাধিক মোদি জমানাতেই। কৃষিসঙ্কট‌ ইস্যুতে নির্বাচনী প্রচারে গলা ফাটিয়েছে বিরোধীরা। কিন্তু কাশ্মীরে ৩৭০ ধারা বিলোপ এবং অসমের জাতীয় নাগরিক পঞ্জিকে হাতিয়ার করে জাতীয়তাবাদী হাওয়া তুলেই এবারও বাজিমাত করতে চলেছে বিজেপি। বিরোধীরা অন্তত প্রচারের ক্ষেত্রে তেমন সক্রিয় হতে পারেনি। রাজ্যে রাজ্যে গোষ্ঠীদ্বন্দ্বে জর্জরিত কংগ্রেসের বেহাল অবস্থা। মহারাষ্ট্রে এনসিপি একা লড়াইয়ের ময়দানে ছিল। এছাড়াও দুটি রাজ্যেই মোদি–‌অমিত শাহদের লাগাতার প্রচার ক্ষমতা দখলের লড়াইয়ে এগিয়ে দিয়েছে গেরুয়া শিবিরকে।‌

জনপ্রিয়

Back To Top