আজকাল ওয়েবডেস্ক:‌ সুশান্তের মৃত্যুর মামলায় বলেছিলেন, ‘‌রিয়ার অওকাত নেই।’‌ বিহারের সেই পুলিশ প্রধান এবার চাকরি থেকে স্বেচ্ছাবসর নিলেন। শোনা যাচ্ছে, আসন্ন বিধানসভা নির্বাচনে শাসক জোটের হয়ে লড়বেন গুপ্তেশ্বর পাণ্ডে। সবুজ সঙ্কেত দিয়েছেন খোদ মুখ্যমন্ত্রী নীতীশ কুমার। 
বিহারের নতুন পুলিশ প্রধান হলেন এস কে সিংঘল। মঙ্গলবার সন্ধেবেলা স্বেচ্ছাবসরের লিখিত অনুরোধ পাঠান পাণ্ডে। নীতীশ কুমারের সরকার সম্মতি দেয়। সাধারণত ইস্তফা জমা দেওয়ার পর আমলাদের তিন মাস অপেক্ষা করতে হয়। কাজ চালিয়ে যেতে হয়। তার পরই চাকরি ছাড়া যায়। এক্ষেত্রে সেই সময়সীমার ঘেরাটোপ থেকে পাণ্ডেকে মুক্তি দিয়েছে বিহারের জোট সরকার। খবর, বক্সার জেলার সাহপুর থেকে এনডিএ জোটের প্রার্থী হয়ে বিধানসভা নির্বাচন লড়বেন তিনি। 
যদিও ভোটে লড়ার কথা এখনই স্বীকার করেননি পাণ্ডে। বললেন, ‘‌এখনও কোনও রাজনৈতিক দলে যোগ দিইনি। যখন দেব, সব জানাব।’‌ তাঁর সিদ্ধান্তের সঙ্গে সুশান্তের মৃত্যুর তদন্তের কোনও যোগ নেই বলেও জানালেন। তাহলে এখন কী করবেন তিনি?‌ গুপ্তেশ্বর পাণ্ডের কথায়, ‘‌আমি আজ থেকে আর ডিজিপি নই। তাই সরকারের কোনও নিয়ম আমার ওপর খাটবে না। বক্সার, জেহানাবাদ, বেগুসরাই থেকে লোক আসছেন দেখা করতে। ওঁদের সঙ্গে কথা বলব, ওঁরা যেভাবে আমার সেবা চায়, বুঝে সিদ্ধান্ত নেব।’‌
সুশান্ত্রে রহস্য মৃত্যুর পর তাঁর বান্ধবী রিয়ার বিরুদ্ধে পাটনার থানায় এফআইআর করেন বাবা কে কে সিং। সেই তদন্তে বড়সড় ভূমিকা নিয়েছেন প্রাক্তন ডিজিপি পাণ্ডে। এর পর তদন্তভার গেছে সিবিআই–এর হাতে। জেডিইউ এবং বিজেপি দুই দলই এই কৃতিত্ব দাবি করেছে। বিহার ভোটে উল্লেখ্য ইস্যু হচ্ছে এই সুশান্ত মৃত্যু মামলা। বিরোধীদের অভিযোগ, এসবের নেপথ্যেও নাকি ছিলেন এই গুপ্তেশ্বর পাণ্ডে। 
বিহার সরকারের সুপারিশে সুপ্রিম কোর্ট সুশান্তের মৃত্যুর তদন্তভার সিবিআই–এর হাতে দেয়। রিয়া এই নিয়ে আদালতে বলেছিলেন, ঘটনায় রাজনীতির রং চড়ানো হচ্ছে। তার পরই গুপ্তেশ্বর পাণ্ডের বলেছিলেন, ‘‌ওঁর অওকাত নেই’‌ মুখ্যমন্ত্রীকে নিয়ে মন্তব্য করার। তুমুল সমালোচনার মুখে পড়ে পাণ্ডে বলেন, মুখ্যমন্ত্রী নীতীশ কুমারের বিরুদ্ধে রিয়া মন্তব্য করেছিলেন বলেই তিনি ওকথা বলেন। মুখ্যমন্ত্রী বিরুদ্ধে কথা বলা ‘‌দুর্ভাগ্যজনক’‌। 
এক জন আইপিএস–এর এ হেন মন্তব্যে বেশ অবাকই হয়েছিলেন সাধারণ মানুষ থেকে বিরোধীরা। তখনই তাঁর রাজনীতিতে যোগ দেওয়ার জল্পনা শুরু হয়। তবে এই প্রথম নয়, ২০০৯ সালেও আইপিএস–এর চাকরি থেকে ইস্তফা দিয়ে লোকসভা ভোটে লড়ার ইচ্ছা প্রকাশ করেছিলেন পাণ্ডে। বক্সার লোকসভা কেন্দ্র থেকে। বিহার সরকার ইস্তফা গ্রহণ করেনি। কথা বলে চাকরিতে ফিরিয়েছিলেন নীতীশ কুমার। 

জনপ্রিয়

Back To Top