আজকাল ওয়েবডেস্ক:‌ ফাঁসির দড়ি তৈরির কাজ চলছে বিহার জেলে। চলতি সপ্তাহের মধ্যেই ১০টি ফাঁসির দড়ি তৈরির নির্দেশ এসেছে জেল কর্তৃপক্ষের কাছে। নির্দেশ মতোই বিহারের বক্সার জেলার একটি জেলে শুরু হয়ে গিয়েছে ফাঁসির দড়ি বোনা। তাতে নানারকম জল্পনা শুরু হয়েছে। তারই মধ্যে তামিলনাড়ুর রামানাথাপুরম জেলা থেকে একটি চিঠি এসে পৌঁছেছে। চিঠিটি পাঠিয়েছেন পুলিশের হেড কনস্টেবল, পুলিশের ডিজিকে। ফলে জল্পনা আরও বেড়ে গিয়েছে। নির্ভয়া কাণ্ডের অপরাধীদের ফাঁসি দেওয়ার প্রস্তুতি হচ্ছে!‌
সংবাদসংস্থা এএনআই–কে দেওয়া একটি সাক্ষাৎকারে তিহাড় জেলের এক অফিসার জানান, নির্ভয়ার সব দোষীরাই তিহাড়েই বন্দি আছে। কিন্তু ফাঁসুড়ের অভাবেই তাদের ফাঁসি কার্যকর করা যাচ্ছে না। প্রয়োজনে অন্য রাজ্য থেকে ফাঁসুড়ে আনা হবে। এই সাক্ষাৎকারের পরই চিঠি আসে পুলিশের ডিজি’‌র কাছে। সেই চিঠিটি পাঠিয়েছেন কনস্টেবল এস সুভাষ শ্রীনিবাসন। যিনি রামানাথাপুরম কনস্টেবল সার্ভিস ট্রেনিংয়ের হেড কনস্টেবল। 
ঠিক কী লেখা আছে চিঠিতে?‌ চিঠিতে তিনি লিখেছেন, ‘‌নির্ভয়ার দোষীদের মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করতে স্বেচ্ছায় এই দায়িত্ব নিতে চাই। এমনকী তার জন্য কোনও পারিশ্রমিক দিতে হবে না। এই কাজ আমাকে দিলে তা সাগ্রহে গ্রহণ করব।’‌ সামশাবাদের অভিযুক্তদের এনকাউন্টারে সন্তোষপ্রকাশ করে নির্ভয়ার মা আশা দেবী এবং বাবা বদ্রীনাথ সিং বলেছেন, তাঁরা সাত বছর ধরে অপেক্ষা করেও ন্যায়বিচার পাননি মেয়ের জন্য। দিল্লি মহিলা কমিশনের প্রধান স্বাতী মালিওয়াল আগামী ১৬ তারিখ নির্ভয়ার ধর্ষণের দিনের আগেই দোষীদের মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করার দাবিতে আমরণ অনশন করছেন। এই পরিস্থিতিতে হেড কনস্টেবল এস সুভাষ শ্রীনিবাসন ডিজি–কে চিঠি দেওয়ায় তিনি এখন সংবাদ শিরোনামে চলে এসেছেন। 

জনপ্রিয়

Back To Top