আজকাল ওয়েবডেস্ক:‌ যেদিনই জম্মু–কাশ্মীরের স্থানীয় প্রশাসন চাইবে, সেদিনই মুক্তি পাবেন জেলবন্দি রাজনৈতিক নেতানেত্রীরা। এব্যাপারে কেন্দ্র কোনও নাক গলাবে না। মঙ্গলবার লোকসভায় দাঁড়িয়ে কংগ্রেসের আক্রমণের জবাবে একথাই বললেন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ। এদিন জম্মু–কাশ্মীর ইস্যুতে লোকসভার বিরোধী দলনেতা অধীররঞ্জন চৌধুরি এবং কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহর বিরুদ্ধে উত্তপ্ত বাক্য বিনিময় হয়। অধীর অমিতকে আক্রমণ করে বলেন যে উপত্যকায় এখনও স্থিতাবস্থা ফেরেনি। রাজনৈতিক নেতানেত্রীরা এখনও কেন জেলবন্দি সেনিয়েও প্রশ্ন তোলেন। উত্তরে অমিত পরিসংখ্যান দিয়ে বলেন, ৩৭০ ধারা বিলোপের পর সেখানে পঞ্চায়ত এবং তহসিল 
ভোটে ৯৫ শতাংশ ভোট পড়েছে। ভোটের দিন কোনও রক্তপাত হয়নি। ইতিমধ্যে সেখানে ৯৯.‌৫ শতাংশ ছাত্রছাত্রী পরীক্ষা দিয়েছে। সব জায়গা থেকেই নিষেধাজ্ঞা এবং ১৪৪ ধারা তুলে নেওয়া হয়েছে।

সাত লক্ষ মানুষ হাসপাতালের ওপিডি পরিষেবা পাচ্ছেন।
এরপরই কংগ্রেসের বিরুদ্ধে তোপ দেগে অধীর বলেন, ‘‌কংগ্রেসের বলেছিল ৩৭০ বিলোপের পর জম্মু–কাশ্মীরে রক্তপাত ঘটবে। অথচ সেরকম কিছু হয়নি। একটাও বুলেট ছোড়া হয়নি। ‌কিন্তু অধীরজির জন্য স্বাভাবিক পরিস্থিতি হল রাজনৈতিক কার্যকলাপ। আমরাও কাউকে জেলে রাখতে চাই না। ওনারা শুধু ৫–৬ মাসই জেলে আছেন। যখন ইন্দিরা গান্ধী প্রধানমন্ত্রী ছিলেন তখন ফারুক আবদুল্লার বাবা ১১ বছর জেলে ছিলেন।’‌ অমিত সাফ জানিয়ে দেন, ‘আঞ্চলিক পরিস্থিতি বিচার করে কবে তাঁদের ছাড়া হবে সেটা সম্পূর্ণ স্থানীয় প্রশাসনের সিদ্ধান্ত হবে। আমরা তাতে নাক গলাব না।’‌ কাশ্মীরবাসীর কথা, তাঁদের উন্নয়নের কথা না ভেবে কংগ্রেস এলাকায় রাজনৈতিক কার্যকলাপ শুরুর চিন্তা করছে বলে অভিযোগ করেন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী।
ছবি:‌ এএনআই  ‌   

জনপ্রিয়

Back To Top