আজকাল ওয়েবডেস্ক:‌ এবার কি সেনাবাহিনীতে কর্মী সংকোচন করতে চলেছে কেন্দ্রীয় সরকার। অস্ত্রভাণ্ডার বৃদ্ধি করতে এবং পুরনো অস্ত্রের বদলে নতুন অস্ত্রের জন্য যে অর্থের প্রয়োজন তা বছরের পর বছর অমিল। সেইজন্য প্রায় দেড় লক্ষ কর্মী সংকোচনের চিন্তাভাবনার কথা উঠে এসেছে। এটা করা গেলে বছরে ৫ হাজার থেকে ৭ হাজার কোটি টাকার মতো বাঁচানো সম্ভব হবে। যা দিয়ে নতুন অস্ত্রের প্রয়োজন মেটানো যাবে। এই খবর চাউর হতেই বেশ শোরগোল পড়ে গিয়েছে। 
চলতি আর্থিক বছরে সেনাবাহিনীর জন্য আর্থিক বরাদ্দের পরিমাণ ছিল প্রায় ১.২৮ লক্ষ কোটি টাকা। যার প্রায় ৮৩ শতাংশই ব্যয় হয় প্রত্যেকদিনের খরচ আর বেতন বাবদ। তার মধ্যে সেনাবাহিনীর বাৎসরিক পেনশনের খরচ ধরা নেই। সেখানে অন্য অ্যাকাউন্ট থেকে টাকা দেওয়া হয়। ফলে প্রতিরক্ষা বাজেটের ১৩ শতাংশ অর্থাৎ প্রায় ২৬,৮২৬ কোটি টাকার মতো ব্যয় করা হয় অস্ত্রের পিছনে। যা প্রয়োজনের পক্ষে যথেষ্ট নয় বলেই দাবি। আগামী কয়েক বছরে অস্ত্রের পিছনে খরচ ২৬,৮২৬ কোটি টাকা করা হচ্ছিল। এবার তা থেকে বাড়িয়ে ৩১,৮২৬ থেকে ৩৩,৮২৬ কোটি টাকার মধ্যে নিয়ে যেতে চায় সেনা কর্তৃপক্ষ। সেক্ষেত্রে প্রায় ৭ হাজার কোটি টাকার ব্যবস্থা করতে হবে। গত মার্চে তৎকালীন সেনাবাহিনীর ভাইস চিফ লেফটেন্যান্ট জেনারেল শরৎ চাঁদ সংসদীয় কমিটির সামনে বলেছিলেন, সেনাবাহিনীর অস্ত্র ভাণ্ডারের ৬৮ শতাংশই বহু পুরনো। ২৪ শতাংশ বর্তমান সময়ের জন্য কার্যকরী। আর ৮ শতাংশ অত্যাধুনিক।
সেনাবাহিনীতে কর্মী সংখ্যা কমানোর বিষয়টি প্রস্তাবের পর্যায়ে রয়েছে। প্রত্যেক বছর সেনা থেকে প্রায় ৬০ হাজার কর্মী অবসর নেন। যদি সেনার পক্ষ থেকে কর্মীসংখ্যা কমানোর সিদ্ধান্তই নেওয়া হয় তাহলে প্রত্যেক বছরে নিয়োগের পরিমাণ কমিয়ে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেওয়া হতে পারে বলে খবর। 

জনপ্রিয়

Back To Top