আজকাল ওয়েবডেস্ক:‌ ১৫ লাখের খোটা এখনও শুনতে হয় প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিকে। ২০১৪ সালে প্রথমবার ক্ষমতায় আসার সময়ে নির্বাচনী প্রচারে তিনি নিজেই বলেছিলেন, কালো টাকা দেশে ফিরিয়ে এনে প্রতিটি ভারতবাসীর অ্যাকাউন্টে ১৫ লাখ পাঠিয়ে দেবেন। পাঁচ বছর কেটে গেল। ১৫ টাকাও পেলেন না একজন ভারতবাসীও। তবে এক এসবিআই কাস্টমারের অ্যাকাউন্টে কিন্তু টাকা ঢুকেছে বেশ কয়েকমাস ধরে। অন্তত তিনি তাই ভেবেছেন, যে প্রধানমন্ত্রী এবার হয়ত সত্যিই টাকা পাঠাতে শুরু করেছেন। মধ্যপ্রদেশের ভিন্দ জেলার হুকুম সিংয়ের এসবিআই ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টে গত ছয় মাসে ঢুকেছে ৮৯ হাজার টাকা। তিনি সত্যি বিশ্বাস করেছিলেন যে প্রধানমন্ত্রীই তাঁকে প্রত্যেক মাসে টাকা পাঠাচ্ছেন। কিন্তু হঠাৎ একদিন দেখলেন যে, তাঁর অ্যাকাউন্ট থেকে টাকা কেটে নেওয়া হয়েছে। তিনি সোজা ব্যাঙ্কে চলে গেলেন। ব্যাঙ্ক ম্যানেজারকে গিয়ে জিজ্ঞেস করলেন, ‘‌কেন টাকা কেটে নেওয়া হল?‌ আমার অ্যাকাউন্টে এক লক্ষ ৪০ হাজার টাকা ছিল। এখন পড়ে আছে ৩৫ হাজার টাকা।’ শুনে ব্যাঙ্ক ম্যানেজারও গেলেন ঘাবড়ে। বিষয়টি খতিয়ে দেখতেই মামলা জলের মতো পরিষ্কার। যান্ত্রিক ত্রুটি। যান্ত্রিক ত্রুটির কারণেই এত গোলমাল। শুরুতে তো ব্যাঙ্ক নিজের ভুলের কথা স্বীকার করতেই চাইছিল না। পড়ে জানা গেল, হুকুম সিং নামে দুই ব্যক্তি আছে। দুজনেই ওই একটি অ্যাকাউন্টের মালিক। কিন্তু ছবি আলাদা। অর্থাৎ দুই হুকুম সিং একটাই অ্যাকাউন্ট ব্যবহার করছেন গত ছয় মাস ধরে। অথচ দুজনেই দুটি আলাদা শাখা থেকে অ্যাকাউন্ট খুলিয়েছিলেন। এবার এই ঘটনার চূড়ান্ত নিষ্পত্তি কী উপায় সম্ভব, তা বুঝেই উঠতে পারছেন না ব্যাঙ্ক ম্যানেজার।  

জনপ্রিয়

Back To Top