আজকাল ওয়েবডেস্ক:‌ জানেন তো, হৃদস্পন্দনের রেখাটা যখন আঁকাবাঁকা হয়, তখনই বলা হয় মানুষ জীবিত, নয়ত সোজা রেখা মৃত্যুর কথা বলে। তেমনই প্রেমের সম্পর্কের গ্রাফ উঁচু–নিচু যদি না থাকে, তাহলে সেই সম্পর্ক মৃত। তাই ঝগড়া হলে মনমরা হয়ে যাবেন না। জানবেন, এটাই সত্য। 
আপনার পার্টনার কোনও বিষয় আপনার অপছন্দ হলে তাঁকে না বলে আপনি চুপ করে সহ্য করবেন, এমনটা করলে অভিমানগুলো জমতে জমতে একদিন পাহাড় হয়ে যাবে আর সেটা পার করা খুব মুশকিলের। তবে হ্যাঁ কেউ কারওর কথা না শুনে চিৎকার করতে থাকলে সে সমস্যা জীবনেও মিটবে না। তাই নিচের এই চারটে কথা প্রতিবার ঝগড়ার সময় মাথায় রাখবেন–
১। খুঁটিনাটি সব বিষয়ে ঝগড়া বাঁধাবেন না। আপনার পার্টনারের এমন দু’‌একটা জিনিস বেছে নিন যা আপনি সহ্য করতে পারেন না। কথা বলার চেষ্টা করুন। তাঁকে ভালভাবে বোঝান, আপনার সেই বিষয়গুলি কেন অপছন্দ। যদি দেখেন যে আপনার পার্টনার কখনওই মেনে নেবেন না। তাহলে হাল ছেড়ে দিন। শান্তি বজায় রাখার জন্য কখনও কখনও কিছু জিনিস মেনে নিতে হয় তা পুরুষ হোন বা মহিলা। তবে হ্যাঁ আপনার কথা মানানোর জন্য অন্য কোনও ভাল পদ্ধতি খুঁজে বের করতে থাকুন। 

২। তুমুল ঝগড়া বেঁধেছে। হাতের বাইরে চলে যাচ্ছে। সঙ্গে সঙ্গে নিজেকে নিয়ন্ত্রণে আনুন। আপনার পার্টনারকে বলুন একটা বিরতির প্রয়োজন। না হলে কেউ কারওর কথা না শুনেই শুধু চিৎকার করে যাবেন। তাতে কোনও লাভ নেই। হয় পাশের ঘরে চলে যান অথবা একটু খোলা হাওয়ায় হেঁটে আসুন। বিশেষজ্ঞরা বলেন, ৪০ মিনিট সময় লাগে মনকে শান্ত করতে। মনে রাখবেন, কথা অসম্পূর্ণ ছেড়ে দিলে হবে না। শান্ত হয়েই আলোচনায় ফিরে আসুন। 

৩। কখনও কখনও নিজের ভুল স্বীকার করে নিলে তা সম্পর্কের জন্য স্বাস্থ্যকর। আপনার মন জানে আপনি ভুল। কিন্তু অহং আপনাকে তা স্বীকার করতে দিচ্ছে না। এক্ষেত্রে নিজের অহং–কে দূরে সরিয়ে রাখলে তা আপনাদের দু’‌জনের জন্যই ভাল। 

৪। মনের মধ্যে কষ্ট চেপে বসে আছেন?‌ পার্টনারের সঙ্গে অভিমানের খেলা চলছে বলে কথা বলতে পারছেন না?‌ একা থাকবেন না, কোনও বন্ধু বা আত্মীয়ের কাছে গিয়ে সবটা বলে দিন। তাঁরা এই পরিস্থিতে তৃতীয় ব্যক্তি হয়ে নিজের মতামত জানাতে পারেন। অন্যের চোখ দিয়ে নিজেকে দেখলে অনেক সময় অনেক দিক স্পষ্ট হয়ে যায়। সঙ্গে আপনার কষ্টটাকে ভাগ করে নিলে আপনার মনের ওপর থেকে বোঝাও হালকা হয়ে যাবে।  ‌‌‌‌‌

জনপ্রিয়

Back To Top