আজকাল ওয়েবডেস্ক:‌ কেউ কেউ বলবেন এতো সরাসরি যৌনতার হাতছানি। কিন্তু মিস ট্রাভেল অ্যাপ যে এই সুযোগই এনে দিচ্ছে। 
ঘুরতে যেতে কে না ভালবাসেন। বাঙালিরা আবার একটু বেশিই ভ্রমণপিপাসু। কিন্তু অনেকেই সঙ্গী বা সঙ্গিনীর অভাবে ঘুরতে যেতে চান না। বা গেলেও বড্ড একাকীত্ব বোধ করেন। এই একাকীত্ব ঘোচাতেই বাজারে এসেছে মিস ট্রাভেল অ্যাপ। ইতিমধ্যেই যা দারুণ জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে। 
অবশ্য মধ্যবিত্তদের নাগালের বাইরে এই অ্যাপ। ধনী ব্যক্তিরাই এই অ্যাপের সুযোগ নিতে পারবেন। যারা মহিলাদের নিজের খরচে বিদেশ ভ্রমণে নিয়ে যেতে পারবেন। পরিবর্তে যৌনসুখ উপভোগ করার সুযোগ পাবেন তাঁরা। মোদ্দা কথা এসকর্ট সার্ভিস ছাড়া আর কিছুই নয়। 
মিস ট্রাভেল অ্যাপেল সদস্যরা বেশিরভাগই বয়স্ক। যারা ভ্রমণসঙ্গী হিসেবে তরুণীদের চান। সঙ্গিনীর সব খরচই বহন করতে প্রস্তুত তাঁরা। নগদ টাকা এক্ষেত্রে সঙ্গিনীকে দিতে হবে না। মূলত ঠাণ্ডার দেশেই যেতে চান মিস ট্যাভেল অ্যাপের সদস্যরা। যেখানে হোটেলের একই রুমে থাকবেন তাঁর সঙ্গিনী। 
২০১২ সালে এই অ্যাপটি বাজারে আসে। ইতিমধ্যেই তাঁদের সদস্য সংখ্যা ৬ লক্ষ ১৫ আজার ৪৭০। এখানে রেজিস্ট্রেশনের জন্য কোনও খরচ লাগে না। মহিলারা অবশ্য বাড়তি সুবিধা পান। তাঁরা ফ্রি কল করতে পারেন সদস্যদের। পুরুষরা প্রিমিয়াম সদস্যপদ নিলেই একমাত্র মহিলাদের ফোন নম্বর পাবেন। রেজিস্ট্রেশনের ক্ষেত্রে বয়স হতে হবে ১৮। প্রোফাইলে ছবি থাকাটা আবশ্যক। সদস্যরা নিজেদের পছন্দমতো সঙ্গিনী বেছে নিতে পারবেন। 
তিন ধরণের ভ্রমণের কথা উল্লেখ রয়েছে এই অ্যাপে। হয়ত সঙ্গিনীকে পুরো খরচ দিয়ে নিয়ে যাও। কিংবা কেউ বলতে পারেন আমার খরচটা দিয়ে দিন। কিংবা দু’‌জনে ভাগাভাগি করে টাকা দিলেই হল। সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ তথ্য হল, এই অ্যাপের বেশিরভাগই বিবাহিত সদস্য। যদিও সাইটটির দাবি তাঁদের এটা এসকর্ট সার্ভিস নয়। কিন্তু ঘুরতে যাওয়ার সঙ্গে যৌনতার হাতছানিতে যারা পা দেয়, তাদের আমরা কী বলেই আর ডাকতে পারি। ‌‌

জনপ্রিয়

Back To Top