রাজীব ঘোষ: ‘‌বাজ্‌’‌ তখন সত্যি গমগম করছে। মাধবী মুখোপাধ্যায় ইলিশ রাঁধবেন বলে কথা!‌ একে একে হাজির ঋতা ভিমানি, রঞ্জন বন্দ্যোপাধ্যায়রা। অন্তত দেড় যুগ হল সুখাদ্য রঞ্জনদার অনন্য গদ্যে রঞ্জিত, নুপূরশিঞ্জিতপদে তাঁর পায়ে পায়ে চলে আসে ‘‌নেশা’‌। নবীন ব্লগাররা ‘‌নেশা’‌–‌কে তফাতে পাঠিয়ে রঞ্জনদার সঙ্গে পটাপট ছবি তুলে ফেলে। একে ইলিশ, তায় সত্যজিতের ‘‌চারুলতা’‌–‌র সঙ্গে জাম রঙের বেনারসী। ক্লাসিকের গন্ধ যেন ভুরভুর করছে।
কী রাঁধবেন?‌ মাধবীর পাল্টা, ‘‌বলুন তো— বন থেকে বেরল টিয়ে/‌সবুজ টোপর মাথায় দিয়ে’‌— কী?‌’‌ আমরা কোরাসে:‌ ‘‌আনারস, আনারস।’‌ ইলিশ ঈষৎ ভেজে নিয়ে, তেলে কালোজিরে, কাঁচালঙ্কা, শুকনো লঙ্কার ফোড়ন আর আনারসের কুচি দিয়ে আনারসি ইলিশ। একটু আনারসের রস দিয়ে ভাপিয়ে নেওয়ার অপেক্ষা। গেটওয়ে হোটেলে ইলিশ উৎসবের বোধন হয়ে গেল। ওঁরা নাম দিয়েছেন ‘‌রুপোলি ইতিকথা’‌— অস্যার্থ, ইলিশের মুড়ো থেকে লেজা, কিছুই যাবে না ফেলা।

ইলিশ বলেই তখন অনর্গল বরিশালের মেয়ে, বলছেন কনককাঠি গ্রামের কথা। কীর্তনখোলা নদীর ইলিশের স্বাদের কথাও। কনককাঠি, কীর্তনখোলা!‌ আঃ কান জুড়িয়ে দেওয়া নাম। গল্পে, গল্পেই ইলিশের উজানে। বাঁধাকপি দিয়ে রাঁধা হল ইলিশের মাথা। কচুপাতা, অন্যথায় কচি কলাপাতায় মোড়া নারকেলি ইলিশ, সর্ষে–‌নারকেলের এই যুগলবন্দি যে কোনও আসর মাত করতে পারে।
সামনে ইলিশ–‌থালি, পাশে মাধবী মুখোপাধ্যায়। রোমাঞ্চ তুঙ্গে। স্বামী কিশোর ভিমানি গুজরাটি, বাড়িতে নিরামিষেরই চল, ঋতাদি ইলিশে মজলেন। প্রথমে স্যালাড ঝুরো ইলিশে, তারপর ইলিশের পিঠে। ঢাকার স্বাদ অবিকল।ইলিশের পোলাও আর ইলিশ ভাজা। নারকেলি, আনারসি, বাঁধাকপির কথা আগেই বলেছি। শেষ পাতে ইলিশের অম্বল আর ইলিশের পেটির মতো সন্দেশ!‌ এই তবে ইতিকথা!‌
চাইলেও যার এত খাওয়া সইবে না তাঁর আর কী করা— বেছে নিতে হবে পছন্দের পদ। বেগুন দিয়ে কাঁচা ইলিশের ঝোল আছে, আছে সর্ষে ইলিশ, দুধ ইলিশ, খিচুড়ি ইলিশ ভাজা— যার যেমন প্রাণ চায়। ২১ আগস্ট থেকে লাঞ্চে–‌ডিনারে চাইলেই পাতে প্রাণাধিক, পরমপ্রিয় ইলিশ।‌

জনপ্রিয়

Back To Top