আজকাল ওয়েবডেস্ক: শীতকে টাটা বাই বাই বলার সময় হয়ে এল অথচ ঠোঁটের শুষ্কতা গেল না। মরা চামড়াগুলো ধারালো সূচের মতো হয়ে রয়েছে। কিন্তু রোজ নিয়ম মতো স্নানের সময়ে তেল ও রাতে শোওয়ার সময়ে ক্রিম তো মাখা হয়। তাহলে?‌ আর কী করা যায়!‌ আছে উপায় আছে। একটা নয় একাধিক। কিন্তু তার জন্য আগে জানতে হবে এর কারণটা। সিগারেট খাওয়া, আল্ট্রা ভায়োলেট রশ্মি, হরমোনের সমস্যা, অত্যধিক কফি খাওয়া অথবা ভিটামিন বি টু– এর অভাব ঠোঁটের শুষ্কতাকে বাড়িয়ে দেয়। প্রথমে এই বদ অভ্যাসগুলোকে ছাড়ার চেষ্টা করুন। তারপর কয়েকটি ঘরোয়া টোটকা ব্যবহার করুন। উপকার পাবেন।

● ‌অ্যালো ভেরা– বাড়িতে অ্যালো ভেরা গাছ থাকলে ভাল। না থাকলে শুদ্ধ অ্যালো ভেরা জেল কিনে নিন। এতে রয়েছে, ভিটামিন, মিনারেল, অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট। প্রতিদিন রাতে অল্প একটু অ্যালো ভেরা জেল ঠোঁটে মেখে শোবেন। এতে আপনার ঠোঁট আর্দ্রতা পাবে।
   
● নারকেল তেল– ঠোঁটে একফোঁটা নারকেল তেল মেখে রাখলে প্রদাহজনিত সমস্যা থাকলে তা সেরে যাবে আর ঠোঁটকে করে তুলবে নরম ও আর্দ্র।

● মধু– মধু ময়শ্চারাইজ করতে সাহায্য করে। অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট ও অ্যান্টিব্যাকটেরিয়াল গুণ আছে বলে শুষ্কতাকে আটকায় ও মরা চামড়া জমতে দেয় না।
 
● শশা–  ভিটামিন ও মিনারেল থাকায় শশা ঠোঁট আর্দ্র ও নরম রাখতে সাহায্য করে।

● গ্রিন টি– অ্যান্টি অক্সিডেন্ট ও মিনারেল রয়েছে, যা ত্বককে আর্দ্র রাখে। পলিফেনল রয়েছে, যা ত্বকের প্রদাহ কমায়। একটি গ্রিন টি ব্যাগ হালকা গরম জলে ভিজিয়ে নিন। খুব আস্তে আস্তে ঠোঁটে মাখতে থাকুন। ঠোঁটের চামড়া শুষ্ক হওয়া থেকে আটকাবে এই পদ্ধতি।

এছাড়া কিছু স্ক্রাবারও বানানো যায় বাড়িতে। যেকোনও একটি প্রয়োগ করলে আপনি খুব তাড়াতাড়ি উপকার পাবেন।

● গোলাপের পাপড়ি জলে ভিজিয়ে রাখুন রাতে। সকালে উঠে পাপড়িগুলো পিষে তার সঙ্গে একটু দুধ মিশিয়ে ঠোঁটে মাখুন। ৩০ মিনিট রেখে নিন। তারপর হালকা গরম জলে ধুয়ে ফেলুন।   

● এক চিমটে হলুদ, তিন ফোঁটা দুধ ভাল করে মিশিয়ে ঠোঁটে মেখে নিন। দু’‌তিন মিনিট রেখে দিয়ে হালকা গরম জল দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। যেকোনও ভাল সংস্থার একটি লিপ বাম মেখে রেখে দিন। 

● তিন ফোঁটা লেবুর রস ও এক চিমটে চিনি নিয়ে ভাল করে মেশান। তর্জনীতে নিয়ে ঠোঁটে ঘষতে থাকুন। এতে মরা চামড়াগুলো উঠে আসবে। তারপর এক মিনিট রেখে হালকা গরম জলে ধুয়ে ফেলুন। এই পদ্ধতি সপ্তাহে দু’‌বার করে প্রয়োগ করুন।‌‌

জনপ্রিয়

Back To Top