আজকাল ওয়েবডেস্ক: ‌সকালে উঠে জমিয়ে এক কাপ চা না খেলে যেন গোটা দিনটাই ঝিমিয়ে থাকে। চা–প্রেমী যাঁরা একমাত্র তাঁরাই এটা বোঝেন। কথায় বলে, চায়ের জন্য কোনও নির্দিষ্ট সময় নেই। সব সময়ই চা খাওয়া যেতে পারে। তবে অবশ্যই সেই চা স্বাদে–গন্ধে অতুলনীয় হতে হবে। এমনই এক চায়ের সন্ধান পাওয়া গেল, যার এক কেজি চায়ের ৪০,০০০ টাকা। গুয়াহাটি টি অকশন সেন্টারে এক সর্বভারতীয় নিলামে এমনই রেকর্ড দাম উঠল গোল্ডেন নিডল টি নামে এক বিশেষ চায়ের। এই বিশেষ চা তৈরি হয়েছে অরুণাচল প্রদেশের দনিপোলো টি এস্টেটে।
গোল্ডেন নিডল টি যেন ঠিক এক পেয়ালা গলে যাওয়া সোনা, দাবি চা–বিশেষজ্ঞদের। তাঁরা জানাচ্ছেন, গোল্ডেন নিডল হল এক ধরণের অত্যন্ত স্পর্শকাতর ছোটো আকারের চায়ের পাতা। অতি সাবধানে সেই পাতা তুলতে হয়। অত্যন্ত নরম এই চায়ের পাতার উপর একটি সোনালি রঙের পরত থাকে, যার থেকে এর নাম হয়েছে গোল্ডেন নিডল। ধরলে মনে হয় যেন ভেলভেটের তৈরি এই চা পাতা। এই চা সাধারণত দুধ ছাড়া লিকার হিসেবেই বানানো হয়। লিকারের রঙটিও হয় সোনালি। মনে হবে যেন এক পেয়ালা গলানো সোনা। মিষ্টি স্বাদের এই চায়ের গন্ধ অতুলনীয়। আর এর গন্ধই সবচেয়ে বেশি টানে চা প্রেমীদের। দনিপোলো টি এস্টেটের ম্যানেজার মনোজ কুমার জানিয়েছেন, এই চা তৈরি করা মোটেই সহজ নয়। অনেক কসরত ও প্রচেষ্টা লাগে এর পেছনে। 
ম্যানেজার আরও জানিয়েছেন, এর আগে তাঁদের বাগানেই তৈরি হয়েছে সিলভার নিডল টি। তার দাম উঠেছিল কেজিতে ১৭,০০১ টাকা। তিনি বলেন, ‘‌এই ধরণের বিশেষ চাগুলি তৈরিতে যেরকম অসামান্য দক্ষতা লাগে, সেরকম একই সঙ্গে লাগে প্রকৃতির আশির্বাদও।’‌ গুয়াহাটি টি অকশন সেন্টারের নিলাম থেকে ৪০.০০১ টাকা খরচ করে ১.১ কেজি গোল্ডেন নিডল চা কিনেছে গুয়াহাটির সহচেয়ে পুরনো চায়ের দোকান আসাম টি ট্রেডার্স। জিটিএসিতে এর কাছাকাছি দাম উঠেছিল মনোহারি গোল্ড টিয়ের। ৩৯.০০১ টাকা কেজি দরে সর্বভারতীয় নিলামে সেই চা বিক্রি করেছিল কন্টেম্পররি ব্রোকার্স। গুয়াহাটির সৌরভ টি ট্রেডার্স সেই চা কিনেছিল দিল্লি ও আহমেদাবাদে বিক্রির জন্য।

জনপ্রিয়

Back To Top