আজকাল ওয়েবডেস্ক:‌ কেকওয়াক। ইংরেজি প্রবাদবাক্য। যার অর্থ, অনায়াসে সাফল্যপ্রাপ্তি। সেই পুরনো প্রবাদবাক্যটিকেই নিজের কর্মক্ষেত্র বানিয়েছেন ফ্লোরিডা নিবাসী ডিজাইনার ক্রিস ক্যাম্পবেল। কেক, আইসক্রিম, ওয়েফেল্স, প্যাস্ট্রি, পুডিং, ফ্রুট স্যালাডের মতো পাতশেষের মিষ্টি খাবারগুলির ডিজাইনে তিনি তৈরি করছেন মেয়েদের জুতো।

 নিজে খেতে ভালোবাসেন এধরনের মিষ্টি খাবার। তাই নিজের সেই ভালোলাগাকেই নিজের হাতে ফুটিয়ে তুলছেন হাই হিল, ব্লক হিল বা সাধারণ, সব ধরনের জুতোর উপর। মেশিন নয়, প্রতিটি জিনিসই তাঁর নিজের হাতেই তৈরি। এমনকি নিজের সাধের এই জুতো কারখানার নামও ক্রিস দিয়েছেন ‘‌শু বেকারি’‌।  আর শুধু জুতোই নয়, একইরকম মিষ্টি খাবারের ডিজাইনে মেয়েদের ব্যাগ, বেল্টও তৈরি করছেন ক্রিস।

ব্যাগ, বেল্ট তৈরির শাখার নাম ক্রিস দিয়েছেন, ‘বেক আ ব্যাগ’‌। ২০১৩ সালে ফ্লোরিডার অর্ল্যান্ডোয় প্রথম এই অভিনব জুতো কারখানা খুলেছিলেন ক্রিস। তখন অত জনপ্রিয় না হলেও সোশ্যাল মিডিয়ার দৌলতে আজ ক্রিসের শু বেকারির রমরমা বেড়েছে। ক্রিস জানালেন, ১৮–৪০, সব বয়সের মহিলাদের কাছেই সমান জনপ্রিয় তাঁর জুতো।

নিয়ের দিন পরার জন্য নতুন কনেও যেমন কেনে তাঁর জুতো, তেমনই কোনও মা নিজের জন্য কিনতে এসে অতিরিক্ত জোড়া নিয়ে যান তাঁর মেয়ের জন্যও। গাড়ির সিট যে মাইক্রোফাইবারে তৈরি হয়, তা দিয়েই তৈরি জুতোগুলি। ফলে পরেও আরাম হয়। দাম মার্কিন ডলারে ২৬০–৬৫০ পর্যন্ত। কিছু নির্দিষ্ট বুটিক ছাড়া অনলাইনেও সহজেই পেয়ে যাবেন ক্রিস ক্যাম্পবেলের এই ডেজার্ট জুতো।
ছবি:‌ এএনআই        

জনপ্রিয়

Back To Top