আজকালের প্রতিবেদন: ঘূর্ণিঝড় ‘‌বুলবুল’‌–এ পরিণত হওয়ার আগে মাঝ বঙ্গোপসাগরে শক্তি বাড়াচ্ছে নিম্নচাপ। ধীর গতিতে এগোচ্ছে পশ্চিমবঙ্গ ও বাংলাদেশের উপকূলের দিকে। বৃহস্পতিবার সেটি ঘূর্ণিঝড়ে পরিণত হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। এর প্রভাবে শনি ও রবিবার রাজ্যের উপকূলের ৪ জেলা— দুই মেদিনীপুর ও দুই ২৪ পরগনায় ভারী বৃষ্টির সম্ভাবনা থাকছে। উপকূলে ৭০ কিলোমিটার বেগে ঝোড়ো হাওয়া বইতে পারে। এ কারণে মৎস্যজীবীদের বৃহস্পতিবারের মধ্যে উপকূলে ফিরে আসতে বলা হয়েছে। শুক্রবার থেকে নতুন করে কাউকে সাগরে মাছ ধরতে না যেতেও বলা হয়েছে। এদিকে আরব সাগরে দানা বাঁধা ঘূর্ণিঝড় ‘‌মহা’‌ আছড়ে পড়ার আগে শক্তিক্ষয় করে পরিণত হতে পারে গভীর নিম্নচাপে।
আবহাওয়া দপ্তর জানিয়েছে, আন্দামানের কাছে দানা বাঁধা নিম্নচাপটি বুধবার দুপুরে গভীর আকার ধারণ করে পূর্ব–মধ্য এবং সংলগ্ন দক্ষিণ–পূর্ব বঙ্গোপসাগরে অবস্থান করে রয়েছে। আপাতত সেটি কলকাতা থেকে ১ হাজার ৩০ কিলোমিটার এবং সাগর থেকে ৯২০ কিলোমিটার দক্ষিণ ও দক্ষিণ–পশ্চিমে অবস্থান করে রয়েছে। এখনও পর্যন্ত নিম্নচাপটির যা গতি–প্রকৃতি তাতে ঘূর্ণিঝড়ে পরিণত হওয়ার পর সেটির পশ্চিমবঙ্গ ও বাংলাদেশের উপকূল বরাবর এগিয়ে আসতে পারে। আবহাওয়া দপ্তর সূত্রে জানা গেছে, সঠিক বলা যাবে এটি ঘূর্ণিঝড়ে পরিণত হওয়ার পর।
মৌসম ভবন জানিয়েছে, নিম্নচাপ ঘূর্ণিঝড় ’‌বুলবুল’‌–এ পরিণত হওয়ার পর উত্তর ও উত্তর–পূর্ব দিকে এগোতে পারে। তবে কতটা বাঁক নেবে তার ওপর নির্ভর করবে এ রাজ্যে কতটা বৃষ্টি হবে। ঘূর্ণিঝড় উপকূলের দিকে এলে শনিবার থেকে ওডিশায় প্রবল বৃষ্টি হবে। বৃষ্টি শুরু হবে এ রাজ্যেও। রেশ চলতে পারে সোমবার পর্যন্ত। ইতিমধ্যেই এর প্রভাবে আন্দামানে প্রবল বৃষ্টি শুরু হয়েছে। ঘূর্ণিঝড়ে পরিণত হওয়ার পর সেটির ঘূর্ণন গতি হবে ১২০ থেকে ১৩০ কিলোমিটার প্রতি ঘণ্টায়। যা বেড়ে ১৪৫ কিলোমিটার হতে পারে।
এদিকে, গুজরাত উপকূলের দিকে প্রবল গতিতে এগিয়ে চলা অন্য একটি ঘূর্ণিঝড় ‘‌মহা’‌ আরব সাগরের ওপরেই ক্রমে শক্তি ক্ষয় করতে শুরু করেছে। বৃহস্পতিবার সেটি প্রবল ঘূর্ণিঝড় থেকে শক্তি হারিয়ে সাধারণ ঘূর্ণিঝড়ে পরিণত হতে পারে। গুজরাটের সৌরাষ্ট্র ও দিউয়ের কাছাকাছি উপকূলে আছড়ে পড়ার সময় সেটি শক্তি হারিয়ে গভীর নিম্নচাপে পরিণত হতে পারে। এদিকে ঘূর্ণিঝড় ‘‌বুলবুল’‌–এ পরিণত হওয়ার আগে আন্দামানের কাছে দানা বাঁধা নিম্নচাপ সাগরের ওপর খুব ধীর গতিতে সামনের দিকে এগোনোয় চিন্তা বানছে আবহাওয়াবিদদের। তাঁরা বলছেন, যত বেশি সময় এটি সাগরের ওপর থাকবে ততই জোলো হাওয়ায় পুষ্ট হয়ে বাড়বে শক্তি। শুক্রবার থেকেই এ রাজ্যের উপকূল উত্তাল হয়ে উঠবে।

জনপ্রিয়

Back To Top