‌সুকমল শীল: ডায়নোসরের সময়ে পৃথিবী কেমন ছিল, তা দেখে আসতে পারবেন কিছুক্ষণের জন্য। যাওয়া যাবে হরপ্পা, মহেঞ্জোদারো সভ্যতাতেও। আজ থেকে একশো বছর পরের পৃথিবীতেও ঘুরে আসা যাবে। কেমন সেই পৃথিবী? কেমন ছিল গ্রিক বা মিশরীয় সভ্যতা?‌‌ ‘‌টাইম ট্রাভেলে’ মিলবে সেই অভিজ্ঞতা। এই ইচ্ছাপূরণের জন্য সায়েন্স সিটিতে আসছে নতুন ‘‌টাইম মেশিন’‌। যাতে চড়ে মুহূর্তে পাড়ি দেওয়া যাবে অতীত বা ভবিষ্যতে। 
কেমন হবে বর্তমান থেকে মুহূর্তে অতীত বা ভবিষ্যৎ দুনিয়ায় ভ্রমণ করার ওই যন্ত্র? সায়েন্স সিটির অধিকর্তা শুভব্রত চৌধুরি বলছেন, ‘‌যন্ত্রগুলি দেখতে ক্যাপসুলের মতো। এক একটা যন্ত্রে ১৫ জন করে সময় ভ্রমণকারী বসতে পারবেন। আমাদের প্রতিটি শো–এর সময়সীমা থাকবে ৩–৪ মিনিট। কম্পিউটার সাইমালেশন পদ্ধতির মাধ্যমে নিয়ন্ত্রিত হবে। টাইম ট্রাভেলের এফেক্ট ভাল ভাবে পেতে ভ্রমণকারীদের থ্রিডি চশমা পরতে হবে। গা ছমছমে ভৌতিক অন্ধকার। আচমকা আলোর ঝলকানি। ডাইনোসরের হুঙ্কার। অথবা ফারাও তুতেনখামেনের মৃত্যুর সময়ে ফিরে যাওয়া। সবই থাকবে টাইম ট্রাভেলে।’‌
অধিকর্তা জানান, ১৯৯৭ সালে সায়েন্স সিটিতে ‘‌ভেঞ্চুরা’‌ মেসিন আনা হয়েছিল। ইংল্যান্ড থেকে আনা ওই যন্ত্র যথেষ্ট জনপ্রিয়তাও পেয়েছিল। কিন্তু সময়ের সঙ্গে সঙ্গে তা ক্রমশ দুর্বল হয়ে পড়ে। এক সময় ওই সংস্থা যন্ত্রের রক্ষণাবেক্ষণও বন্ধ করে দেয়। সায়েন্স সিটির ইঞ্জিনিয়ারদের রক্ষণাবেক্ষণেই বেশ কিছুদিন চালানো হয়েছিল ওই মেশিন। কিন্তু ভ্রমণ‌কারীদের নিরাপত্তার কথা ভেবে ২০১৮–র এপ্রিলের মাঝামাঝি ওই টাইম মেশিনের যাত্রা বন্ধ করে দিতে হয়। তার মধ্যেই প্রায় ৪৫ লক্ষ দর্শক সময় ভ্রমণ করে ফেলেছেন। সংখ্যার নিরিখে ওই সময়ের মধ্যে সায়েন্স সিটির দর্শকদের ১৪.‌২ শতাংশই টাইম মেশিন চেপেছেন। ব্যাপক জনপ্রিয়তার কারণেই ফের টাইম মেশিন আনা হচ্ছে সায়েন্স সিটিতে।
শুভব্রতবাবু বলেছেন, ‘‌নতুন যন্ত্র দুটি কেনা হচ্ছে আমেরিকার ‘‌ডোরন প্রিসিসান সিস্টেম’‌ সংস্থার কাছ থেকে। ‌চলতি মাসে আমাদের এখান থেকে দুজন ইঞ্জিনিয়ার আমেরিকায় ওই যন্ত্র পরিদর্শন করতে যাবেন। অক্টোবর মাসে যন্ত্র দু‌টো চলে আসবে। যার এক একটির দাম ২ কোটি ৮ লক্ষ টাকা। যন্ত্র অনেকটা ক্যাপসুলের মতো দেখতে হবে। যন্ত্রের মধ্যে ১৫ জনের বসার ব্যবস্থা থাকবে। সামনে থাকবে ৬৬ ইঞ্চির ডিজিটাল স্ক্রিন। অতীত বা ভবিষ্যতে পাড়ি দেওয়ার সময় দ্রুত চারপাশের দৃশ্যপট বদলাতে শুরু করবে। যাত্রীদের মনে হবে ক্যাপসুল তীব্রগতিতে দুলতে দুলতে একটা সুড়ঙ্গের মধ্যে দিয়ে এগিয়ে চলেছে। নির্দিষ্ট সময়কালে পৌঁছোনোর পর থ্রি–ডি ‘‌এফেক্টে’‌ দেখা যাবে সে যুগের দৃশ্য। প্রাথমিক ভাবে অতীত ও ভবিষ্যৎ মিলিয়ে বিভিন্ন সময়ের ভিডিও আনা হবে। থাকতে পারে মিশরীয় সভ্যতা, প্রাগৈতিহাসিক যুগ, কৃষ্ণগহ্বর, গ্রিক সভ্যতার ভিডিও। আগের টাইম মেশিনের টিকিট ছিল ৩০ টাকা। নতুন মেশিনের টিকিটের দাম এখনও ঠিক করা হয়নি। 

জনপ্রিয়

Back To Top