‌আজকালের প্রতিবেদন: পঞ্চসায়র থানা এলাকায় গাড়িতে তুলে ধর্ষণের ঘটনায় পাঁচদিনের মধ্যেই একজনকে গ্রেপ্তার করা হল। পেশায় ট্যাক্সিচালক ওই ব্যক্তির নাম উত্তম রাম। ধর্ষণের তদন্তে নেমে পুলিশ সেদিন রাতে কী ঘটেছিল জানতে একটি তদন্তকারী দল তৈরি করে। যে অঞ্চলে ধর্ষণের ঘটনা ঘটেছিল সেখানকার সমস্ত সিসি টিভি ফুটেজ দেখা হয়। সিসি টিভির ফুটেজ দেখেই উত্তমের ট্যাক্সির সন্ধান পায় পুলিশ। শনিবার সন্ধেবেলায় গড়িয়া থেকে তাকে ধরা হয়। এরপর থানায় বসিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ শুরু হয়। থানায় যান যুগ্ম নগরপাল (‌অপরাধ দমন)‌ মুরলীধর শর্মা, ইস্ট ডিভিশনের ডিসি রূপেশ কুমার। উত্তমের কথায় বেশ কিছু অসঙ্গতি রয়েছে। দীর্ঘ জেরার পর তাকে গ্রেপ্তার করা হয়। আরও এক ব্যক্তির সন্ধান চলছে। গত মঙ্গলবার পঞ্চসায়রের সেবা ওল্ডএজ হোমের এক মহিলাকে গণধর্ষণ করা হয়েছে বলে থানায় অভিযোগ জানানো হয়। অভিযোগে বলা হয়েছিল, সেদিন রাতে তিনি নিজেই হোমের তালা খুলে বাইরে আসেন। হোমের সামনে থেকে তিনি একটি গাড়িতে ওঠেন কোথাও যাওয়ার জন্য। তখন উত্তম রাম তার ট্যাক্সি নিয়ে সেই গাড়িটি অনুসরণ করে। এরপর মহিলা নেমে গিয়ে উত্তমকে বলেন পৌঁছে দিতে। অভিযোগ, উত্তম চালকের পাশের সিটে তাকে বসতে বলে। কিন্তু, মহিলা যেখানে যেতে চাইছিলেন, সেখানে না পৌঁছে নরেন্দ্রপুরের দিকে গাড়ি ছুটিয়ে দেয়। সে রাতে মদ্যপান করেছিল উত্তম। অন্য রাস্তায় যাওয়া হচ্ছে দেখেই অভিযোগকারিণীর সঙ্গে বচসা ও ধস্তাধস্তি শুরু হয় উত্তমের। এরপর নরেন্দ্রপুর থানার কাটিপোতায় মহিলাকে গাড়ি থেকে ফেলে দেয় উত্তম। স্থানীয় মানুষ সোনারপুর থানায় পৌঁছে দেয় মহিলাকে। এরপর পুলিশের সহায়তায় একটি হোমে তাকে রাখা হয়। 
ওই মহিলা ধর্ষণের শিকার হয়েছিলেন কি না, তা নিয়ে অবশ্য প্রশ্ন রয়েছে পুলিশের। যৌন হেনস্থাও হতে পারে। গোটা বিষয়টি দেখা হচ্ছে।‌‌ ওই হোমের বিরুদ্ধে পঞ্চসায়র থানায় অভিযোগ দায়ের করেছে ধর্ষিতার পরিবার।

জনপ্রিয়

Back To Top