আজকালের প্রতিবেদন: বিখ্যাত প্রকৃতি ও জীববিজ্ঞানী রতনলাল ব্রহ্মচারী সোমবার গভীর রাতে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেছেন। মৃত্যুকালে তাঁর বয়স হয়েছিল ৮৬। শেষ দিন পর্যন্ত তিনি ইন্ডিয়ান স্ট্যাটিসস্টিক্যাল ইনস্টিটিউটে চাঞ্চল্যকর প্রকৃতিবিজ্ঞানের গবেষণায় মগ্ন ছিলেন। আইএসআই–‌এর ১৬ জন বৈজ্ঞানিকের একটি বিশেষ দল এখন গাছের স্নায়ু ও মস্তিষ্ক নিয়ে গবেষণায় নিবিড়ভাবে ব্যস্ত। এই দলে পদার্থবিজ্ঞানী, গণিতজ্ঞ, জীববিজ্ঞানী, কম্পিউটার বিশেষজ্ঞ— বিজ্ঞানের নানা শাখার অভিজ্ঞ ব্যক্তিরা আছেন। রতনলাল ছিলেন তঁাদের একজন। জগদীশ বসু আবিষ্কার করেছিলেন, বৃক্ষ তড়িৎ তরঙ্গে সাড়া দেয়। রতনলালের মতো আইএসআই–‌এর বৈজ্ঞানিকদের গবেষণার বিষয় মানুষের মস্তিষ্ক ও স্নায়ুর মতো গাছের মস্তিষ্ক ও স্নায়ু সক্রিয় কি না। গোটা বিশ্ব জুড়েই বাঘের ওপর রতনলালের গবেষণা সাড়া ফেলেছিল। বাঘ কীভাবে ফেরোমনের সাহায্যে তঁার এলাকা চিহ্নিত করে।‌ আফ্রিকার জঙ্গলে, ‘‌বর্ন ফ্রি’–খ্যাত জর্জ অ্যাডামসন–এর সঙ্গে তিনি দীর্ঘদিন গবেষণার কাজ চালিয়েছেন। সরাসরি চাকরিজীবন থেকে অবসর নিয়েছিলেন ২৬ বছর আগে। কিন্তু কখনও গবেষণার কাজ থেকে অবসর নেননি। মলিকুলার বায়োলজির ক্ষেত্রে তঁার অবদানকে হরগোবিন্দ খুরানার সঙ্গে তুলনা করা হয়।

জনপ্রিয়

Back To Top