সোমনাথ মণ্ডল: শহরের রাস্তায় ‘‌পার্কিং লট’‌ থেকে রাজস্ব আদায়ে কঠোর হচ্ছে কলকাতা পুরসভা। পাশাপাশি, শহরবাসীকে কম খরচে নিশ্চিন্ত পার্কিংয়ের সুবিধাও দিতে চায় তারা। তাই চালু হচ্ছে ‘নাইট পার্কিং পারমিট’ও। অভিযোগ,‌ বিভিন্ন পার্কিং লটের দায়িত্বপ্রাপ্ত থাকা ঠিকাকর্মীরা বেশি টাকা দাবি করেন। পক্ষান্তরে, অনেক ‘গাড়িবান’ ব্যস্ত রাস্তায় বাড়ির সামনে দিনের পর দিন গাড়ি রাখেন। সেই সূত্রেই পার্কিং নিয়ে পরীক্ষা‌‌নিরীক্ষা চলছে। কলকাতা পুলিসের সঙ্গে যৌথ উদ্যোগে বিষয়টি নিয়ে এগিয়েছে পুরসভা। পুলিসের ‘‌বন্ধু অ্যাপ’–‌‌এর মধ্যে রয়েছে ‘‌স্মার্ট পার্কিং’‌ অ্যাপ। এর সাহায্যে বাড়িতে বসেই নির্দিষ্ট এলাকার ‘‌পার্কিং’‌ বুক করতে পারবেন গাড়িচালকেরা। টাকাও মেটানো যাবে অ্যাপের মাধ্যমেই। শহরে পার্কিংয়ের দায়িত্বে রয়েছে বিভিন্ন বেসরকারি সংস্থা (‌পুরসভা দরপত্র ডেকে তাদের বরাত দেয়)‌। সেই সংস্থার কর্মীদের দেওয়া হচ্ছে স্মার্টফোন। সেই ফোনে প্রথমে অ্যাপের মাধ্যমে নিজের গাড়ি এবং মোবাইল নম্বর দিয়ে ‘রেজিস্ট্রেশন’ করাতে হবে। অ্যাপ বলে দেবে, কোথায় কোথায় পার্কিংয়ের এলাকা। প্রয়োজনীয় জায়গা বেছে ‘ক্লিক’ করলে পার্কিং লটে জায়গা ফাঁকা আছে কিনা জানা যাবে। দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মী তাঁর ‘স্মার্ট পার্কিং’ অ্যাপে সংশ্লিষ্ট গাড়ির নম্বরটি ‘আপলোড’ করবেন। চালকের মোবাইলে যাবে একটি ‘ওটিপি’ (‌ওয়ান টাইম পাসওয়ার্ড)। তা কর্মীকে জানালেই অ্যাপে নথিভুক্ত হয়ে যাবে গাড়ির নম্বর। কাজ শেষে ফেরার সময় মোবাইলেই চালক জেনে যাবেন, কতক্ষণ গাড়ি রেখেছেন, ঘণ্টাপ্রতি গাড়ি রাখার খরচ কী এবং তাঁকে সেই হিসেবে কত টাকা দিতে হবে। এতে যেমন চালক হয়রান হবেন না, তেমনই ওই কর্মীও বেশি টাকা দাবি করতে পারবেন না। আপাতত পার্ক স্ট্রিট, লিন্ডসে স্ট্রিট, ক্যামাক স্ট্রিট, নিউ মার্কেট, রাসেল স্ট্রিট, রাসবিহারী–‌সহ কয়েকটি এলাকায় এই অ্যাপের সুবিধা মিলছে। মেয়র পারিষদ (‌পার্কিং) দেবাশিস কুমারের কথায়, ‘পার্কিং নিয়ে কোনও রকম দুর্নীতি বরদাস্ত করা হবে না। স্বচ্ছতা আনতে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’ 

 

 

 

নাইট পার্কিং পারমিট‌: খুব সামান্য খরচ। নির্দিষ্ট রাস্তার ওপর গাড়ি রাখাতে পারবেন। কলকাতা পুরসভা মাসিক ভাড়ার বিনিময়ে একটি স্টিকার দেবে। গাড়িতে ওই স্টিকার লাগানো থাকলে পুলিসও কিছু বলবে না। তবে স্টিকার ছাড়া রাস্তায় গাড়ি থাকলে জরিমানার। বছরভর রাতে অভিযােন নামবে পুরসভা। ধরা পড়লেই ১০০০ টাকা।

মাসিক ভাড়া:

চার চাকার ছোট গাড়ি: ৫০০ ‌

মিনিবাস, ছোটা হাতি: ৬০০

বাস এবং লরি: ১০০০

(রাত ১০টা–সকাল ৭টা), ৩ মাস, ৬ মাস বা ১ বছরের ভাড়া একসঙ্গে দিতে হবে৷

২৪ ঘণ্টা পার্কিং: 

পুলিসের অনুমতি লাগবে। ভাড়া বছরে ২৪ হাজার টাকা। একবারই দিতে হবে।

জনপ্রিয়

Back To Top