সৌগত চক্রবর্তী: ‌শনিবার প্রবল প্রাকৃতিক দুর্যোগে যখন নন্দন চত্বর কিছুটা হলেও অগোছালো, তখনই টালিগঞ্জের ‘‌চলচ্চিত্র শতবার্ষিকী ভবন’–এ এক সাংবাদিক সম্মেলনে ২৫তম কলকাতা আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসবের মুখ্য উপদেষ্টা ও মন্ত্রী অরূপ বিশ্বাস শোনালেন এক আশার বাণী। বাংলা সিনেমার শতবর্ষে এদিনই দর্শকের জন্য বাণিজ্যিকভাবে খুলে দেওয়া হল চলচ্চিত্র শতবার্ষিকী ভবনের দরজা। এবার থেকে প্রতিদিন ২টো, ৫টা ও ৭টার শোয়ে দর্শক এখানে দেখতে পাবেন সিনেমা। অরূপ বিশ্বাস এদিন বলেন, ‘‌একের পর এক প্রেক্ষাগৃহ বন্ধ হয়ে যাওয়ার ফলে সিনেমা শিল্পে একটা সঙ্কট সৃষ্টি হয়েছে। দর্শক সিনেমার পরিবর্তে সিরিয়ালমুখি হয়ে পড়েছেন। সেই সিরিয়ালমুখি দর্শকদের আবার সিনেমার দিকে ফেরানোর জন্যই রাজ্য সরকারের এই উদ্যোগ।’‌ বললেন, ‘‌যেহেতু এই ১৫৭ আসনের হলটিও নন্দনের মতোই একটা সংযোজন, তাই এই হলের টিকিটের মূল্যও রাখা হয়েছে ৩০ টাকা ও ৫০ টাকা।’‌
কিন্তু কেন এই হলকে নন্দনের সঙ্গে তুলনা করা হচ্ছে,‌ তার ব্যাখ্যা দিলেন গৌতম ঘোষ। এই পরিকল্পনার প্রথম উৎসাহদাতা তিনিই। সেই পরিকল্পনাকে বাস্তবায়িত করতে এগিয়ে এসেছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি ও পিডব্লিউডি। 
এদিন গৌতম ঘোষ বললেন, ‘‌এই চলচ্চিত্র কেন্দ্র একই সঙ্গে তিনটি কাজ করবে। দর্শকের জন্যে বাণিজ্যিক শো তো থাকছেই, তার সঙ্গে সকাল থেকে দুপুর ২টো পর্যন্ত থাকবে সিনেমা প্রিভিউ–‌এর ব্যবস্থা। কারণ, ছবিটা শেষমেষ কেমন হয়ে উঠল, কোনও ভুলত্রুটি থাকল কি না তা ছোট মনিটরে দেখে বোঝা যায় না। ফলে কোনও ভুল হয়ে থাকলে তা শোধরানো যায় না। এই প্রিভিউ–‌এর মাধ্যমে পরিচালকেরা সেই সুযোগ পাবেন।’‌ গৌতম ঘোষ জানালেন, ‘‌এখানে ফিল্মের শিক্ষানবিশ যাঁরা, তাঁরাও বিভিন্ন ছবি দেখতে পারবেন।’‌ এই চলচ্চিত্র শতবার্ষিকী ভবন তৈরি হয়েছে রাধা স্টুডিয়োর একটি অংশে। এতদিন তা শুধু নানা ছবির সেলুলয়েড নেগেটিভ রক্ষণাবেক্ষণের কাজে ব্যবহৃত হত। প্রায় ১০ হাজার ছবির নেগেটিভ এখানে সযত্নে রাখা আছে। গৌতম ঘোষ জানালেন, এবার এখানে শুরু হবে ফিল্ম রেস্টোরেশনের কাজও।
এই কেন্দ্রে পুরনো সেলুলয়েড ছবি দেখানোর জন্যে বসানো হয়েছে ৩৫ মিমি প্রজেক্টর। তার সঙ্গে আছে ডিজিটাল সিনেমা প্রজেক্টর ও ভিসিডি প্রজেক্টরও। এই চলচ্চিত্র উৎসবে বেশ কিছু সেলুলয়েড ছবি দেখানো হবে এই চলচ্চিত্র শতবার্ষিকী ভবনে। এরকম প্রজেক্টর একমাত্র নন্দন ছাড়া দেশের আর কোথাও নেই।
এই চলচ্চিত্র উৎসবের চেয়ারপার্সন রাজ চক্রবর্তী জানালেন, ‘‌যাঁরা ছোট প্রযোজক তাঁরা এই হলে তাঁদের ছবির প্রিমিয়ারেরও ব্যবস্থা করতে পারেন। আর সিনেমা প্রিভিউও করতে পারেন।’ সাংবাদিক সম্মেলনে ছিলেন তথ্য–সংস্কৃতি দপ্তরের অধিকর্তা মিত্র চট্টোপাধ্যায়।‌ এদিন এই নতুন প্রেক্ষাগৃহে দেখানো হল সাঁওতালি ভাষার ছবি ‘‌ফুলমণি’‌। বিরবাহা হাঁসদা ও বিরসা হাঁসদা অভিনীত এই ছবির পরিচালক দশরথ হাঁসদা।
এদিকে, নন্দন চত্বর প্রাকৃতিক দুর্যোগের ফলে বেশ আগোছালো। ভেঙে পড়েছে ছোট স্টলগুলো, মুক্তমঞ্চ জলে ভর্তি, ছিঁড়ে পড়েছে ফিল্ম ফেস্টিভাল উপলক্ষে সাজানো ছবিগুলো। ভেঙে পড়েছে গেট। আজ নন্দন ২–‌এর সামনের প্রদর্শনীর উদ্বোধন করার কথা ছিল জার্মানি পরিচালক ফল্‌কার স্লোয়েনডর্ফের। প্রাকৃতিক দুর্যোগের কারণে তা বন্ধ রাখা হয়েছে। তবে রাখি গুলজার এদিন উদ্বোধন করলেন গগনেন্দ্র শিল্প প্রদর্শশালায় ‘‌কেআইএফএফ আ জার্নি অফ ২৫ ইয়ার্স’‌ প্রদর্শনীর। 
এদিন সাংবদিকদের মুখোমুখি হলেন অস্কারজয়ী অভিনেত্রী অ্যান্ডি ম্যাকডাওয়েল। জানালেন, ‘‌এত সুন্দর চলচ্চিত্র উৎসব দেখে আমি অভিভূত। শাহরুখ খানের সঙ্গে আলাপ করে ভাল লেগেছে। তবে সবচেয়ে ভাল লাগল আপনারা সেলুলয়েড ছবির সংরক্ষণ ও তা চলচ্চিত্র উৎসবে প্রদর্শনের ব্যবস্থা করছেন দেখে। এই ব্যবস্থা কিন্তু অন্য কোনও চলচ্চিত্র উৎসবে নেই।’‌ শনিবার এই প্রাকৃতিক দুর্যোগের মধ্যেও বিকেল থেকে ভিড় বাড়তে শুরু করে দর্শকের। এদিন নন্দনের সামনে দেখা যায় ছাতা মাথায় লম্বা লাইন। পছন্দের সিনেমা দেখার জন্যে।‌‌

জনপ্রিয়

Back To Top