আজকালের প্রতিবেদন- এবার থেকে মেট্রো যাত্রীদের অভাব–‌ অভিযোগের বিষয়টি নিয়মিত নজরে রাখবে রাজ্য ক্রেতাসুরক্ষা দপ্তর। দপ্তরের ভারপ্রাপ্ত মন্ত্রী সাধন পান্ডে সোমবার জানিয়েছেন একথা। এদিন তিনি গিরিশ পার্ক স্টেশন থেকে একটি নন এসি রেকে পার্ক স্ট্রিট স্টেশন পর্যন্ত ভ্রমণ করেন। মন্ত্রীকে কাছে পেয়ে যাত্রীরা সময়মতো ট্রেন আসা থেকে শুরু করে এসি রেকের সংখ্যা বাড়ানো এবং বেশ কিছু বিষয় নিয়ে ব্যবস্থা নিতে অনুরোধ করেন। অভিযোগ শুনে মেট্রো আধিকারিকদের সঙ্গে যাত্রী–‌সুবিধার নানা বিষয়ে আলোচনা ছাড়াও, সমস্যা সমাধানে তঁাদের বেশ কয়েকটি প্রস্তাব দিয়েছেন মন্ত্রী। বিশ্বজিৎ সামন্ত নামে এক যাত্রী এদিন মেট্রো আধিকারিকদের বলেন, ব্যস্ত সময়ে যেন তঁারা নিজেরা ট্রেনে ভ্রমণ করে দেখেন তঁাদের কী পরিস্থিতির মুখোমুখি হতে হচ্ছে। 
এদিন মন্ত্রী বলেন, ‘‌এবার থেকে আমাদের দপ্তর থেকে নিয়মিতভাবে যাত্রী সুবিধার বিষয়গুলির প্রতি নজর রাখা হবে। রেলমন্ত্রী পীযূষ গোয়েলকে চিঠি লিখে জানাব, যাতে কলকাতা মেট্রোর দিকে নজর দেওয়া হয়।’‌ 
এদিন মেট্রোর ‘‌সেন্সর’ ব্যবস্থা–সহ এসি রেক এবং যাত্রীদের শৌচালয়ের সমস্যা সমাধানে দ্রুত ব্যবস্থা নিতে মেট্রো আধিকারিকদের বলেন ক্রেতাসুরক্ষা মন্ত্রী। তিনি বলেন, ‘‌মেট্রোর পুরোনো রেকগুলিতে ‘‌সেন্সর’‌ ব্যবস্থা খারাপ। ফলে, দরজা ঠিকমতো খুলতে বা বন্ধ হতে সময় লাগছে। তাড়াতাড়ি এর সমাধান করতে হবে। সমস্ত রেক এসি করতে হবে। প্রয়োজনে নন এসি রেকে ভ্রমণের সর্বনিম্ন ভাড়া ৫ টাকার বদলে ৩ টাকা নেওয়া হোক। যাত্রীরা অভিযোগ করেছেন, সময়মতো ট্রেন আসে না। মেট্রোর কাছে আমার প্রস্তাব, ৩ মিনিট অন্তর ট্রেন চালানো হোক। স্টেশনে যখন ট্রেন থাকবে না, তখন যাত্রীরা যাতে লাইনের কাছে যেতে না পারেন, সে কারণে প্ল্যাটফর্মের ধার ফিতে বা অন্য কিছু দিয়ে আটকাতে হবে। ঠিক হয়েছে, প্রয়োজনে যাত্রীরা স্টেশনের আধিকারিকদের শৌচালয় ব্যবহার করতে পারবেন। কিন্তু সেই শৌচালয়গুলি কীভাবে সম্প্রসারণ করা হবে, তার একটি রূপরেখা আমাকে পাঠাতে বলেছি।’‌ 
মেট্রোর মুখ্য জনসংযোগ আধিকারিক ইন্দ্রাণী ব্যানার্জি জানিয়েছেন, এ বিষয়ে মন্ত্রীর তরফ থেকে লিখিত প্রস্তাব পেলে অবশ্যই দেখা হবে।

মেট্রো রেলের যাত্রীদের সুবিধে–‌অসুবিধের কথা শুনছেন ক্রেতা–‌সুরক্ষা মন্ত্রী সাধন পান্ডে। পার্ক স্ট্রিট স্টেশনে, সোমবার। ছবি:‌ তপন মুখার্জি

জনপ্রিয়

Back To Top