অভিজিৎ বসাক:  মাঝেরহাট ব্রিজ ভেঙে পড়ায় বন্ধ জোকা–বিবাদী বাগ মেট্রো প্রকল্পের কাজ। নির্মাণকর্মীদের কাজ নেই। ব্রিজ সংলগ্ন এলাকায়, যেখানে প্রকল্পের কাজ চলছিল, সেখানকার শ্রমিকরা ফিরে যাচ্ছেন বাড়িতে। তবে দুর্ঘটনায় নিহত সহকর্মীদের পাশে দাঁড়ানোর জন্য অর্থ সংগ্রহ করছেন তাঁরা। ওদিকে, ব্রিজের ভেঙে–পড়া অংশ সরিয়ে নেওয়ার কাজ চলছে। ভগ্নাবশেষ নিয়ে যাওয়া হচ্ছে শিবপুরে। ব্রিজের কাছের আন্ডারপাসে বসানো হচ্ছে হাইট–বার। ক্রেন, ডাম্পার কাজে লাগিয়ে তাড়াতাড়ি ধ্বংসস্তূপ সরিয়ে ফেলার কাজ হচ্ছে। কলকাতা পুলিস, কলকাতা পুরসভা, বিপর্যয় মোকাবিলা দপ্তরের কর্মীরা যুক্ত রয়েছেন। বিদ্যুতের লাইন মেরামত করতে হচ্ছে। অনেক জায়গায় বসানো হচ্ছে নতুন তার। বিদ্যুৎ পরিষেবা ব্যাহত হচ্ছে। প্রভাব পড়েছে ভেঙে–পড়া অংশ সরানোর কাজে।
প্রকল্প এলাকার পাশেই টিন, বেড়া দিয়ে গোটা কুড়ি অস্থায়ী বসবাসের জায়গা। সেখানেই থাকেন নির্মাণকর্মীরা। কেউ বছর চারেক, কেউ মাস দুই। ৭৫–৮০ জন। তাঁদের জনা পঞ্চাশেক বাড়ির পথে। নিজেরাই রান্না করে খান। প্রকল্পের কাজ চলত দিনরাত। এখন বিরতি কতদিনের, জানেন না তাঁরা। উদ্বিগ্ন পরিবার–পরিজন তাঁদের বার বার ঘরে ফেরার জন্য ডাকাডাকি করছেন। তাঁদের কথা ফেলতেও পারছেন না নির্মাণ শ্রমিকদের অনেকে। তাই বাড়ির দিকে রওনা হতে শুরু করেছেন অনেকে। বৃহস্পতিবার তাঁদের অস্থায়ী ঘরে গিয়ে দেখা গেল, বিদ্যুৎ নেই। ফটিক শেখ জানালেন, ‘‌দুর্ঘটনায় নিহত সহকর্মীদের জন্য অর্থসাহায্য করেছি। ঠিকাদার সংস্থা সাহায্য করেছে।’‌ উল্টো দিকের ঘরে নড়বড়ে খাটে বসে নারদ সিং, 
সহদেব সর্দার, মহাদেব সর্দাররা কেউ গুছিয়ে নিচ্ছিলেন ব্যাগ, কেউ বাঁধছিলেন জুতোর ফিতে। তবে ৭–১০ দিন পর আবার ফিরে আসবেন, 
এমনই আশা। 

  মাঝেরহাট ব্রিজ। ছবি: তপন মুখার্জি

জনপ্রিয়

Back To Top