আজকালের প্রতিবেদন: পুজোতেও ডেঙ্গি প্রতিরোধে সচেতনতা চালাতে শুরু হল বিশেষ প্রতিযোগিতা। শনিবার পুরসভার কাউন্সিলর ক্লাবরুমে ‘‌স্বাস্থ্যবান্ধব’‌ পুজো প্রতিযোগিতার সূচনা করলেন কলকাতার মহানাগরিক ফিরহাদ হাকিম। মেয়র পারিষদ (‌স্বাস্থ্য)‌ অতীন ঘোষের নেতৃত্বে পুর স্বাস্থ্য দপ্তরের কাজের প্রশংসা করেন মেয়র। বলেন, ‌‘‌ডেঙ্গি মোকাবিলায় কলকাতা পুরসভা দেশের মধ্যে নজির তৈরি করেছে। এটা পুর স্বাস্থ্য দপ্তরের নিরন্তর লড়াইয়ের ফল। সারা বছর স্বাস্থ্য দপ্তর ডেঙ্গি ও মশাবাহিত রোগ প্রতিরোধে লড়াই করে। বাড়ি বাড়ি গিয়ে মানুষকে সচেতন করা থেকে পরিষ্কার পরিচ্ছন্নতা— সব দিকেই নজর রয়েছে। নিয়মিত অভিযান চালানো হচ্ছে। যেখানে পৌঁছানো যায় না সেখানে ড্রোন দিয়ে নজর রাখা হচ্ছে। ডেঙ্গি মোকাবিলায় কলকাতা পুরসভার কাজ দেখতে বাংলাদেশ থেকে প্রতিনিধিরা এসেছিলেন। পুজোর সময়ও মানুষ যাতে সচেতন থাকে তাই স্বাস্থ্য দপ্তর আয়োজন করেছে স্বাস্থ্যবান্ধব পুজো প্রতিযোগিতা।’‌ 
ডেপুটি মেয়র অতীন ঘোষ জানান, গত বছর থেকে পুর স্বাস্থ্য দপ্তর পুজো মণ্ডপ ও চত্বর পরিষ্কার পরিচ্ছন্নের ওপর ‘‌স্বাস্থ্যবান্ধব‌ পুজো’‌ প্রতিযোগিতা শুরু করেছে। মণ্ডপের কোথাও আবর্জনা পড়ে থাকছে কিনা, সেদিকে নজর রাখতে হবে পুজো কমিটিকেই। ৪৮টি পুজো কমিটিকে পুরস্কৃত করা হবে। উৎসাহিত পুজো কমিটিগুলোও। পুজো কমিটি–‌সহ পুর স্বাস্থ্য দপ্তরের আধিকারিকরা পুজোর সময়ে মণ্ডপ ও সংলগ্ন এলাকায় অভিযান চালিয়ে নজর রাখবেন। ১৬টি বরোর মধ্যে  ৩টি বিভাগে প্রতিযোগিতা হবে। বরো চ্যাম্পিয়ন, রানার্স, মেয়রস চয়েস। বরো চ্যাম্পিয়ন বিজয়ীকে দেওয়া হবে ৩০ হাজার টাকা। রানার্স পাবে ২০ হাজার টাকা। এছাড়া অংশগ্রহণকারী ৪৮ পুজো কমিটি পাবে ১০ হাজার টাকা। অনুষ্ঠানে ছিলেন সাংসদ দীপক অধিকারী, পুর কমিশনার খলিল আহমেদ, স্বাস্থ্য দপ্তরের মুখ্য আধিকারিক ডাঃ মনিরুল ইসলাম মোল্লা, ডা.‌ তপনকুমার মুখার্জি, পতঙ্গবিদ ড.‌ দেবাশিস বিশ্বাস–‌সহ দপ্তরের অফিসাররা।

জনপ্রিয়

Back To Top