আজকাল ওয়েবডেস্ক:‌ ‌দুর্গাপুজো এখন আর শুধুমাত্র কোনও নির্দিষ্ট ধর্মীয় সম্প্রদায়ের উৎসব বলে গণ্য হয় না। এই উৎসব এখন সমাজ রাজনীতির উর্ধ্বে উঠে গিয়েছে। যার প্রভাব পড়ে শহরের পুজো প্যাণ্ডেলগুলির থিমে। সেরকম ভাবেই বেলেঘাটা ৩৩ পল্লির পুজো এবার সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির বার্তা দিতে চেয়েছিল। বিগত কয়েক বছরে দেশজুড়ে যে সাম্প্রদায়িক অশান্তির বাতাবরণ তৈরি হয়েছে, তার বিরুদ্ধে দাঁড়িয়ে সর্ব ধর্ম সম্বন্বয়ের বার্তা দিতে চেয়েছিল বেলেঘাটা ৩৩ পল্লির পুজো কমিটি। আর তাই নিয়ে তৈরি হল বিতর্ক। পুজো উদ্যোক্তারা ঠিক করেছিলেন মাইকে দুর্গাস্তোত্র বাজানোর পাশাপাশি বাজানো হবে আজান, চার্চবেল। মণ্ডপ সাজানো হবে হিন্দু, ইসলাম ও খ্রীস্টান ধর্মের প্রতীক দিয়ে। থাকবে ছোট ছোট  রেপ্লিকা। যাতে বোঝা যায়, এই পুজো শুধুমাত্র আর হিন্দুধর্মেরই উৎসব নয়। জাতি–ধর্মের উর্ধ্বে উঠে গিয়েছে এই পুজো। বেলেঘাটা ৩৩ পল্লির এই থিমের তীব্র বিরোধিতা করে পুজো উদ্যোক্তাদের বিরুদ্ধে থানায় অভিযোগ জানিয়ে এলেন শান্তনু সিং নামে এক আইনজীবী। তাঁর দাবি, হিন্দুদের ধর্মীয় ভাবাবেগে আঘাত করেছে পুজো কমিটি। মোট আটজনের বিরুদ্ধে থানায় অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে বলে জানা গিয়েছে সংবাদমাধ্যম সূত্রে। 
সংবাদমাধ্যম সূত্রে খবর, পুজো উদ্যোক্তারা জানিয়েছেন, কোনও ধর্মীয় ভাবাবেগে আঘাত করা হয়নি। পুজো মণ্ডপে যেমন দুর্গাস্তোত্র বাজানো হয়েছে, তেমনি বাজানো হয়েছে আজান, চার্চবেল। পুজো কমিটির বক্তব্য, তাঁরা শীঘ্রই সাংবাদিক বৈঠক করে গোটা বিষয়টি পরিষ্কার করে জানাবেন। 

জনপ্রিয়

Back To Top