আজকাল ওয়েবডেস্ক:‌ ‌অষ্টমীতে কুমারী পুজো বহুদিনের রীতি। কলকাতা শহরের বহু বনেদি বাড়িতে যুগ যুগ ধরে কুমারী পুজো হয়ে আসছে। বাগুইহাটির অর্জুনপুরের দত্ত বাড়িও কোনও ব্যতিক্রম নয়। কিন্তু এবারে দত্ত বাড়ি কুমারী পুজোতে যে চমক দিল, তা সত্যিই বৈপ্লবিক। এমন সাম্প্রদায়িক অসহিষ্ণুতার সময়ে দাঁড়িয়ে মহা অষ্টমীর দিন কুমারী হিসাবে পুজো করা হল চার বছরের কুমারী বালিকা ফতেমাকে। লাল বেনারসি, রক্তচন্দনের টিপ, পায়ে আলতা, মাথায় ফুলের মুকুট ফতেমার। ফতেমাকে দুর্গারূপে সিংহাসনে বসিয়ে আরাধনা ও পুজার্চনা করলেন দত্তবাড়ির কুলবধূ মৌসুমি দত্ত। ফতেপুর সিক্রিতে একটি মুসলিম পরিবারে জন্ম ফতেমার। বাবা মুদিখানার দোকান চালান। কলকাতায় এবছর মামার বাড়িতে ঘুরতে আসার কথা আছে ফতেমার, একথা জানতে পেরেই ফতেমাকে কুমারীরূপে পুজো করার সিদ্ধান্ত নেয় দত্তবাড়ি। দত্তবাড়ির সদস্য তমাল দত্ত জানান, ‘২০১৩ সাল থেকে আমরা দুর্গাপুজো করছি। শুরুরদিকে ব্রাহ্মণ মেয়েদেরই কুমারী হিসাবে পুজো করা হত। তারপরই আমরা ধীরে ধীরে অব্রাহ্মণ, দলিতদেরও পুজো করেছি। সেভাবেই এবার একটি মুসলিম মেয়েকে পুজো করার কথা ভাবি আমরা। ফতেমাকে কি মুসলিমদের মতো দেখতে লাগছে?‌ মুসলিমদের কীরকম দেখতে হয়?‌ আমি তো ব্রাহ্মণদের সঙ্গে মুসলিম, শিখ, খ্রীস্টান, জৈনদের কোনও পার্থক্যই খুঁজে পাই না।’ ফতেমার বাবা আহমেদ জানিয়েছেন, ‘‌আমি অত্যন্ত খুশী। এই দেশটা ঠিক যতটা হিন্দুদের, ঠিক ততটাই মুসলিমদের। দুই সম্প্রদায় একসঙ্গে শান্তিতে বসবাস করতে পারলেই দেশ আরও বেশি শক্তিশালী হবে।’‌‌

জনপ্রিয়

Back To Top