আজকালের প্রতিবেদন- দেশের প্রাথমিক স্বাস্থ্যকেন্দ্রগুলি যেন বধ্যভূমি। দেশের স্বাস্থ্য ব্যবস্থার হাল বোঝাতে এমনই শব্দ ব্যবহার করলেন উত্তরপ্রদেশের বিআরডি মেডিক্যাল কলেজের সাসপেন্ড হওয়া চিকিৎসক কাফিল খান। সোমবার কলকাতায় দেশের স্বাস্থ্য ব্যবস্থার তুলোধোনা করলেন। কোথায় কোথায় ত্রুটি রয়েছে তা জানিয়ে গেলেন। কী করলে অবস্থার বদল হতে পারে সে দিশাও দিয়ে গেলেন।
এদিন প্রেস ক্লাবে সাংবাদিকদের তিনি জানান, স্বাস্থ্য ব্যবস্থার মৌলিক একক প্রাথমিক স্বাস্থ্যকেন্দ্র। সেগুলির অবস্থা ভয়াবহ। সেগুলি যেন বধ্যভূমি। ইউনিসেফ বলছে দেশের ৫০ শতাংশ শিশু অপুষ্টিতে ভোগে। ৬২ শতাংশ শিশু টিকা পায়। সরকারি স্বাস্থ্য ব্যবস্থায় প্রায় দেড় লক্ষ পদ খালি রয়েছে। দেশের বেসরকারি হাসপাতাল ২৯ শতাংশ শয্যা, ৮১ শতাংশ চিকিৎসক দখল করে রয়েছে। অবস্থা বদলের জন্য তাঁর পরামর্শ, চিকিৎসা পরিষেবা পাওয়ার ক্ষেত্রে কাউকে যেন আর্থিক বাধার মুখে পড়তে না হয়। অভ্যন্তরীণ গড় উৎপাদনের ৩ শতাংশ স্বাস্থ্যখাতে খরচ করতে হবে। এখন রয়েছে ১‌.‌২ শতাংশ। স্বাস্থ্যক্ষেত্রে দেড় লক্ষ শূন্য পদ পূরণের পাশাপাশি নতুন কাজের সুযোগ তৈরি করতে হবে। আশা কর্মীদের ২০ হাজার এবং অঙ্গনওয়াড়ি কর্মীদের ১৫ হাজার টাকা বেতন দিতে হবে। আরও বেশি করে মানুষকে স্বাস্থ্য পরিষেবা দেওয়ার জন্য তিনি ‘‌হেলথ ফর অল’‌ কর্মসূচি শুরু করেছেন। এর সঙ্গে যুক্ত হয়েছেন স্বাস্থ্যকর্মীরা।‌

সাংবাদিক বৈঠকে ডাঃ কাফিল খান। প্রেস ক্লাবে, সোমবার। ছবি: অভিজিৎ মণ্ডল

জনপ্রিয়

Back To Top