আজকালের প্রতিবেদন: আরএসএস‌‌–বিজেপি–‌র ফ্যাসিবাদকে হারাতে শুধুমাত্র অ–‌বিজেপি সরকার গড়ে তোলাই যথেষ্ট নয়, অ–‌বিজেপি সরকারের দায়িত্ব বিকল্প অর্থনীতির অনুশীলন। যা চ্যালেঞ্জ ছুঁড়বে কর্পোরেট পুঁজি নিয়ন্ত্রিত আজকের ফ্যাসিবাদকে। শুক্রবার যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ে ফ্যাসিবিরোধী কনভেনশনে একথা বললেন অর্থনীতিবিদ অধ্যাপক প্রভাত পটনায়েক।
এদিন গানে স্লোগানে, কবিতায়, আলোচনায় যাদবপুরের বিশ্ববিদ্যালয়ের পার্কিং লটে ওই কনভেনশনে বিভিন্ন বিষয় উঠে আসে। আহ্বায়ক, এসএফআই যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয় আঞ্চলিক কমিটি। কনভেনশনে প্রভাত পট্টনায়েক ব্যাখ্যা করে বলেছেন, ‘‌ত্রিশ দশকের ফ্যাসিবাদ আর আজকের সময়ের ফ্যাসিবাদের পার্থক্যকে বুঝতে হবে। জার্মানিতে, ইতালিতে ফ্যাসিবাদের সমর্থনে গণভিত্তি গড়ে ওঠার অন্যতম কারণ ছিল সেই ফ্যাসিবাদ চরম অমানবিক ও নিষ্ঠুর হলেও স্বল্পমেয়াদি সময়েও জনগণের সঙ্কটকে মোকাবিলা করতে পেরেছিল।’‌  
তিনি বলেন, ‘‌আজকের সময়ের ফ্যাসিবাদ সঙ্কট মোকাবিলায় ব্যর্থ। লগ্নি পুঁজির আন্তর্জাতিকীকরণের ফলে তারা জনগণকে স্বল্পমেয়াদি সুবিধা দিতেও ব্যর্থ। মোদি সরকার আন্তর্জাতিক লগ্নি পুঁজির সঙ্গে সংযোগ বিচ্ছিন্ন করে সরকারি বিনিয়োগ বাড়াতে পারবে না। উৎপাদনে সরকারি বিনিয়োগ করতে পারবে না। ফলে নিদারুণ বেকারি, জনগণের হাতে কাজ না থাকা, মজুরি ছাঁটাইয়ের সমস্যার সমাধানও করতে পারবে না।’‌
কোন পথে হারানো সম্ভব আজকের ফ্যাসিবাদকে? প্রভাত পট্নায়েক বলেছেন, ‘‌প্রথমত গড়ে তোলা প্রয়োজন আরএসএস–বিজেপি মতাদর্শের বিরোধী সর্বোচ্চ রাজনৈতিক ঐক্য। বিরোধী রাজনৈতিক দলগুলির সর্বোচ্চ ঐক্যই পারে জনগণের মধ্যে আত্মবিশ্বাস জোগাতে।’‌ 
বিশিষ্ট চলচিত্র পরিচালক কমলেশ্বর মুখোপাধ্যায় ফ্যাসিবিরোধী লড়াইয়ে ক্যাম্পাসে ছাত্রদের বুক চিতিয়ে লড়াইকে অভিনন্দন জানান। প্রেসিডেন্সি বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক জাদ মাহমুদ বলেন, ‘‌ছাত্রদের বিরুদ্ধে যুদ্ধ ঘোষণা করে মোদিরা জিতবে না। কারণ ছাত্ররা হল ভবিষ্যৎ, অতীত কখনও ভবিষ্যতের সঙ্গে লড়াইতে জেতে না।’‌ হায়দরাবাদ কেন্দ্রীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র সংসদের সভাপতি অভিষেক নন্দন বলেন, ‘‌লাঠিচার্জ, জল কামান, ক্যাম্পাসে, হস্টেলে আক্রমণ শানিয়েও ছাত্রদের আন্দোলনকে স্তব্ধ করা যাচ্ছে না। আসফাকুল্লা, ভগৎ সিংয়ের উত্তরাধিকার ফ্যাসিস্ত শক্তির বিরুদ্ধে জয়ী হবেই।’‌
বক্তব্য পেশ করেন, বিশিষ্ট শিল্পী ওয়াসিম কাপুর, অভিনেতা চন্দন সেন, আলিগড় মুসলিম বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র ইস্তিয়াক, যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক জয়দীপ ঘোষ, পার্থ রায় এবং সৌমিত্র বসু, আইসা নেত্রী সায়নী সাহা। কনভেনশন পরিচালনা করেন বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ অধ্যাপক পবিত্র সরকার।‌‌

বক্তা প্রভাত পটনায়েক। আছেন ওয়াসিম রিয়াজ কাপুর ও পবিত্র সরকার। শুক্রবার। ছবি: বিজয় সেনগুপ্ত

জনপ্রিয়

Back To Top