সম্বৃতা মুখার্জি: টাকার দাম কমলেও রাজ্যে বাড়ছে গণেশের কদর। গণেশপুজোর রমরমা এবার বাংলাজুড়ে। কলকাতা ও আশপাশে গণেশপুজোর জাঁকজমক, রোশনাই, আড়ম্বর সবই এবার বেড়েছে। দুর্গাপুজো, কালীপুজোর মতো পুজোয় এসেছে থিমের আধিপত্য। মুম্বই থেকে মৃৎশিল্পীকে নিয়ে আসা হয়েছে। আনা হয়েছে মূর্তি, আলো। এমনকী নতুন সিনেমার প্রোমোশনের জন্য পর্যন্ত বেছে নেওয়া হয়েছে গণেশপুজোর মণ্ডপ। নেতা, মন্ত্রী, কাউন্সিলর অনেকেই সক্রিয় উদ্যোগ নিচ্ছেন ‘‌গণেশ বন্দনা’–য়। আজ বুধবার বহু জায়গায় পুজো উদ্বোধন হবে। 
ময়ূরের ওপর গণেশ‌!‌‌ ভবানীপুর পোস্ট অফিসের কাছে ‘‌গণপতি ভক্তিমণ্ডলী’‌র ময়ূরেশ্বর গণেশ মূর্তি তৈরি করতে, মুম্বইয়ের শিল্পী ক্রুনাল পাটিল এসেছেন কলকাতায়। ‘‌এই প্রথম কলকাতার গণেশ তৈরিতে ভিনরাজ্যের শিল্পী এলেন’‌, জানালেন কর্মকর্তা গোপী ঠক্কর।
সরকারি ভাবে না হলেও বিজেপির নেতা, সমর্থকরা জড়িয়ে আছেন বিভিন্ন পুজো কমিটিতে। তৃণমূলের নেতা–মন্ত্রীরাও পিছিয়ে নেই। তেঘরিয়ায় এ বছর ৩০ ফুটের গণেশ, কাউন্সিলর সুভাষ দত্তের পুজোর আকর্ষণ। ইভেন্ট ম্যানেজমেন্ট সংস্থার কুন্তল বসু জানান, মন্ত্রী শুভেন্দু অধিকারী, পূর্ণেন্দু বসু, জ্যোতিপ্রিয় মল্লিক এই অনুষ্ঠানে থাকবেন। অন্যদিকে গড়িয়াহাট ইন্দিরা হকার্স ইউনিয়নের ব্যানারে রাজস্থানি কায়দায় তৈরি হচ্ছে গণেশ। কাউন্সিলর সুদর্শনা মুখার্জি জানান, ‘‌উদ্বোধন বৃহস্পতিবার বিকেলে। ১৫ বছরের এই পুজোয় পাঁচ হাজার মানুষকে ভোগ খাওয়ানো হয় প্রতিবার। এছাড়াও ১৫ ও ১৬ সেপ্টেম্বর সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান হবে।  অভিনেতা প্রসেনজিৎ চট্টোপাধ্যায়ের নতুন ছবি ‘‌কিশোর‌কুমার জুনিয়র’‌–এর প্রোমোশন হবে।
 মন্ত্রী সাধন পান্ডে ও তাঁর স্ত্রী সুপ্তী পান্ডের বাড়িতেও হচ্ছে গণেশপুজো। মন্ত্রী বললেন, ‘গণেশপুজো বাড়লে ‌পশ্চিমবঙ্গ আর্থিকভাবে সমৃদ্ধ হবে।’‌
মেয়র পারিষদ দেবাশিস কুমারও গণেশপুজোর সঙ্গে যুক্ত। ভবানীপুরে পুজোর উদ্যোক্তা তৃণমূল নেতা সুশান্ত দে (‌ঝন্টু)‌। মুম্বইয়ের লালবাগ থেকে আনা হয়েছে ঠাকুর, আলো। সারাদিন উপোস থেকে পুজো দেবেন মদন মিত্র। সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে থাকবেন চিরঞ্জিত, শঙ্কর চক্রবর্তী, ভরত কল। উদ্বোধন ১২ তারিখ বিকেলে। বিধাননগরে সি এফ ও বি এফ ব্লকের মাঝে মেয়র সব্যসাচী দত্তের পুজোয় সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে থাকছেন মুম্বইয়ের শিল্পীরা। সল্টলেক পাঞ্জাব ন্যাশনাল ব্যাঙ্কের কাছে বিধাননগরের কাউন্সিলর অনিন্দ্য চ্যাটার্জির পুজোয় এবার প্রথম মুম্বইয়ের সিদ্ধি বিনায়ক। বৈশাখী মোড়ে কাউন্সিলর অনিতা মণ্ডলের পুজোতে হয় জমাটি মেলা। এছাড়াও হাওড়া বামনগাছি কর্মচারী বৃন্দের উদ্যোগে গণেশপুজোর থিম দক্ষিণ ভারতের নৃত্যকলা। শিল্পী গৌর দাস। পুজোর উদ্বোধন করবেন মন্ত্রী লক্ষ্মীরতন শুক্লা। পোস্তা, খান্নাতেও আড়ম্বরের সঙ্গে গণেশপুজো হচ্ছে। 
কুমোরটুলির মৃৎশিল্পী বাবু পাল বললেন, ‘‌প্রতি বছরই গণেশপুজোর বাজার একটু একটু  করে বাড়ছে। মূর্তি বিক্রিও বাড়ছে। গত বছরের চাহিদা দেখেই এ বছর গণেশ তৈরিতে উৎসাহী ছিলেন মৃৎশিল্পীরা। যা তৈরি হয়েছিল তার বেশিরভাগই বিক্রি হয়ে গেছে। এ বছর বিশ্বকর্মার চেয়ে বেশি তৈরি হয়েছে গণেশ। ৪ ফুট থেকে শুরু করে ১২ ফুটের গণেশ তৈরি হয়েছে। ১৫০০ থেকে ৭ হাজার টাকার মূর্তিও রয়েছে।‌’‌‌‌‌

জনপ্রিয়

Back To Top