‌আজকালের প্রতিবেদন: ঋণ পাইয়ে দেওয়ার নাম করে, একেবারে অফিস খুলে প্রতারণা শুরু করেছিল ৮ জন। একবালপুর থানা তাদের গ্রেপ্তার করল। ৬ লক্ষ টাকা ব্যাঙ্কঋণ পেতে এক ব্যক্তি প্রতারকদের খপ্পরে পড়েন। লোন প্রসেসিং ফি, অ্যাডমিনিস্ট্রেটিভ কস্ট, লোন ডকুমেন্টেশন চার্জ ইত্যাদি নানা খাতে ভুয়ো কাগজ দিয়ে চেকের মাধ্যমে ১ লক্ষ ৮ হাজার ৭০০ টাকা হাতিয়ে নেয়। বিভিন্ন ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টে আলাদা আলাদা চেক জমা করতে বলে। এরপর এটিএম কার্ড দিয়ে ওই টাকা তুলে নেওয়া হয়। ১০টি মোবাইল ফোন, প্রচুর ডেবিট কার্ড উদ্ধার করা হয়েছে।‌‌
পুলিশ চঞ্চল রায়, অঞ্জনকুমার দাস, আজহারউদ্দিন, হীরা পান্ডে, প্রশান্ত চক্রবর্তী, ধ্রুবজ্যোতি শর্মা বড়ুয়া, মিঠুন সাহা ও কবীর মণ্ডলকে গ্রেপ্তার করে। এরা অশোকনগর, মহেশতলা, রাজারহাট, নদিয়া, হাবড়া, বাগুইআটি, ব্যারাকপুরের বাসিন্দা। আদতে এরা চিনারপার্ক এবং সেক্টর ফাইভ এলাকায় দুটি অফিস খুলে প্রতারণার কাজ চালিয়ে যাচ্ছিল। এদের অফিসের নামও দিয়েছিল কেকে ট্রেডিং প্রাইভেট লিমিটেড।
অভিযোগ পাওয়ার পর পুলিশ বিভিন্ন ব্যাঙ্কের অ্যাকাউন্ট নম্বর পরীক্ষা করে ব্যাঙ্ক থেকে তথ্য নেয়। এটিএম কাউন্টারগুলির সিসি টিভি ফুটেজ দেখে। এবং যিনি প্রতারিত হয়েছেন, তাঁর মোবাইলে কল ডিটেলসগুলি পরীক্ষা করে। 

জনপ্রিয়

Back To Top