আজকালের প্রতিবেদন- বাড়ি, ফ্ল্যাট রেজিস্ট্রেশনের সময় কলকাতা পুরসভার অনুমোদিত বিল্ডিং প্ল্যান বাধ্যতামূলক। শহরে বেআইনি নির্মাণ রুখতে এমনই নতুন আইন আনার পরিকল্পনা কলকাতা পুরসভার। এজন্য রাজ্য সরকারের কাছে প্রস্তাব পাঠানো হবে। শনিবার একথা জানালেন পুর প্রধান প্রশাসক ফিরহাদ হাকিম। 
এদিন ‘‌টক টু কলকাতা পুরসভা’‌ অনুষ্ঠানে বেআইনি নির্মাণ নিয়ে ১০৭ নম্বর ওয়ার্ডের এক বাসিন্দা অভিযোগ জানান। পুরসভাকে আইনি ব্যবস্থা নেওয়ার প্রস্তাবও দেন। শহরে বেআইনি নির্মাণ নিয়ে এর আগেও একাধিক অভিযোগ এসেছে। পরে পুর প্রশাসক জানান, বেআইনি নির্মাণ রুখতে কড়া ব্যবস্থা নেওয়া হবে। বাড়ি কিংবা ফ্ল্যাটের রেজিস্ট্রেশনের ক্ষেত্রে পুরসভার অনুমোদিত বিল্ডিং প্ল্যান বাধ্যতামূলক করতে হবে। এজন্য নতুন আইন আনতে হবে। সিইএসসি–‌‌র নতুন বিদ্যুৎ সংযোগের ক্ষেত্রে কলকাতা পুরসভা অনুমোদিত বিল্ডিং প্ল্যান বাধ্যতামূলক করার প্রস্তাব দেওয়া হবে। আইনি হলে অবৈধ নির্মাণের ক্ষেত্রে হ্রাস টানা সম্ভব হবে। পানীয় জলের সমস্যা নিয়ে বেশ কয়েকটি ফোন আসে। কোথাও জল মিলছে না। কোথাও জল সরু হয়ে গেছে। অভিযোগ তদারকি করে পুর প্রশাসক সংশ্লিষ্ট দপ্তরকে কেআইপি রাস্তার কাজের পর জলের লাইনগুলি পরীক্ষা করে নেওয়ার নির্দেশ দেন। 
শহরজুড়ে আমফানে পড়ে যাওয়া গাছ কাটার কাজ চলছে। এই সুযোগে কিছু বাসিন্দা নিজের বাড়ির সামনে গাছ কেটে নেওয়ার অভিযোগও আসে। এবিষয়ে পুর প্রধান প্রশাসক জানান, ঝড়ে পড়ে যাওয়া গাছ পুরসভা কাটছে। পাড়ায় পাড়ায় অনেকে নিজেরা খরচ করে বিপজ্জনকভাবে পড়ে থাকা গাছ কাটছেন। বাড়ির সামনে গাছের পাতা, ডাল নিয়ে সমস্যা। তাঁরাও এই সুযোগে গাছ কেটে দিচ্ছেন। কারও দোকানের পাশে গাছ থেকে সমস্যা হচ্ছে, গাছের গোড়ায় অ্যাসিড, গরম ফ্যান দিয়ে দিচ্ছেন। এটা অপরাধ। এভাবে গাছ কাটা যায় না। সব কিছুরই একটা আইন আছে। সম্পূর্ণ বেআইনি কাজ। তাই গাছ লাগানোর পাশাপাশি গাছের দেখভাল করার দায়িত্বও নিতে হবে শহরবাসীকে। ‌‌‌

ফিরহাদ হাকিম।

জনপ্রিয়

Back To Top