আজকালের প্রতিবেদন: প্রোমোটারদের বিরুদ্ধে ভাড়াটেদের সঙ্গে দুর্ব্যবহার, জোর করে জমি দখল করলে বাড়ির নকশা অনুমোদন দেবে না কলকাতা পুরসভা। বুধবারে ‘‌টক টু মেয়র’‌–‌এর পরে ক্ষুব্ধ কলকাতার মহানাগরিক ফিরহাদ হাকিম জানিয়ে দেন, যে–‌সব প্রোমোটার জোর করে জমি দখল করবেন তাঁদের বাড়ি তৈরি নকশার অনুমোদন দেওয়া হবে না। ‌‘‌টক টু মেয়র’–‌‌এ ফোন নিয়ে মহানাগরিক জানান, এ পর্যন্ত‌ প্রায় শ’‌খানেক অভিযোগ এসেছে। পানীয় জল, জমা জল, রাস্তা, আবর্জনা, আলো, অবৈধ নির্মাণ নিয়ে অভিযোগ এসেছে। যার মধ্যে ১০০ শতাংশ সমস্যার সমাধান করেছে পুরসভা। বিভিন্ন দপ্তরের দু–একজন কর্মীর বিরুদ্ধে নাগরিকদের সঙ্গে দুর্ব্যবহারের অভিযোগ উঠেছে। আজও অ্যাসিস্টেন্ট ট্রেজারারের বিরুদ্ধে দুর্ব্যবহারের অভিযোগ জানান সন্তোষপুরের এক বাসিন্দা। সেই সব আধিকারিকের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। বৃহস্পতিবার পুরসভার প্রধান কার্যালয় থেকে আধিকারিকরা ট্রেজারিতে যাবেন। পুরো বিষয়টি খতিয়ে দেখবেন। প্রয়োজনে সেই কর্মীকে স্থানান্তরিত করা হবে। পুরসভার সমস্যা ছাড়াও বাড়িওয়ালা–ভাড়াটে, শরিকি সমস্যা নিয়েও অভিযোগ এসেছে। পাশের পোড়োবাড়ির বটগাছ বিপজ্জনকভাবে ঝুলে রয়েছে। সে সমস্যার কথাও হরিঘোষ স্ট্রিট থেকে ফোন করে জানান। পুরসভা থেকে কালই কর্মীরা গিয়ে সেই গাছের বিপজ্জনক অংশ কেটে দেবে। এদিন ছিল ‘‌টক টু মেয়র’‌ চতুর্থ দিন। বিকেল ৪টের আগে থেকেই পুরসভার হেল্পলাইন নম্বরে ফোনের পর ফোন আসতে থাকে। চলে ৫.‌২০ মিনিট পর্যন্ত। কলকাতা পুর এলাকা ছাড়াও মহেশতলা, দমদম, নিউটাউন, পশ্চিম মেদিনীপুর, সন্দেশখালি থেকে ফোন আসে। ত্রিপুরার আগরতলা থেকেও মেয়রের ফোন আসে। কলকাতার বাইরে থেকে যাঁরা মেয়রকে ফোন করেন, এদিন তাঁদের পুর মন্ত্রীর দপ্তরের ফোন নম্বর দিয়ে দেন ফিরহাদ হাকিম। যোগাযোগ করে তাঁদের সমস্যা সেখানে জানানোর পরামর্শ দেন তিনি। ‌

জনপ্রিয়

Back To Top