মলয় সিন্‌হা- সমাজের মূলস্রোতে মাথা উঁচু করে বাঁচার লড়াই শুরু করে দিয়েছেন অনেক আগে থেকেই। দক্ষিণ কলকাতার যোথপুর পার্কের ১২ ফুট বাই ১০ ফুটের গ্যারেজঘর থেকে লড়াই শুরু করেছিলেন এইচআইভি–পজিটিভ আক্রান্ত যুবক–যুবতীরা। সমাজে পজিটিভ বার্তা দিতে ২০১৮ সালের ১৪ জুলাই ছোট্ট গ্যারেজঘরে ‘‌ক্যাফে পজিটিভ’‌ পথ চলা শুরু করে। কেটেছে অনেকটা সময়। মানুয়ের ভ্রান্ত ধারণা কমেছে অনেকটাই। বেড়েছে বিক্রি। সম্ভাবনা বাড়ছে আরও কর্মসংস্থানের। এইচআইভি আক্রান্ত যুবক–যুবতীদের স্বপ্ন জীবনের নেগেটিভকে হারিয়ে আরও এগিয়ে চলতে হবে। এবার সেই স্বপ্ন সফল হতে চলেছে। শহরে আরও ৩টি নামী শপিং মলের ফুড কোর্টে খুলতে চলেছে ক্যাফে পজিটিভ–এর শাখা। এইচআইভি পজিটিভ মানুষদের নিয়ে ভ্রান্ত ধারণা পোষণ করেন অনেকে। সেই কারণে সমাজের সঙ্গে একটা দূরত্ব ছিল ওঁদের। সেই ধ্যান–ধারণা অনেকটাই বদলে দিয়েছে পূর্ব এশিয়ার তথা দেশের মধ্যে প্রথম কলকাতার যোধপুর পার্কে হওয়া ক্যাফে পজিটিভ। ক্যাফের কর্মী ২০ বছরের যুবতী জানালেন,‘‌আমি এইচআইভি আক্রান্ত। সমাজে স্বাভাবিকভাবে বাঁচতে চাই। এক স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন নতুন করে বাঁচার পথ দেখিয়েছে।’‌ ইডেনে সদ্য হয়ে যাওয়া পিঙ্ক বলের দিন–রাতের ঐতিহাসিক টেস্ট ম্যাচে তারকাদের সঙ্গে সাক্ষী ছিল ক্যাফে পজিটিভ এবং জীবনে নতুন করে বাঁচার লড়াইয়ে শামিল ১০ এইচআইভি আক্রান্ত যুবক–যুবতী। শহরের ক্রিকেটের নন্দন কাননেও টেস্ট ম্যাচ উপলক্ষে ক্যাফে পজিটিভের স্টল বসেছিল। ওই ক্যাফের স্টলে তারকা থেকে শুরু করে হাজার হাজার মানুষ কফি খেয়েছিলেন। তাঁদের উৎসাহে ওঁদের স্বপ্নের উড়ান এবার ডানা মেলেছে আকাশে। এ কথা জানালেন সংগঠনের কর্ণধার কল্লোল ঘোষ। কল্লোলবাবুর কথায়,‘এইচআইভি–পজিটিভ নিয়ে মানুষের ভুল ধারণা কমছে। আমাদের ক্যাফেতেও ক্রমশ বাড়ছে বিক্রি। বাড়ছে কর্মসংস্থানের দিক। এইচআইভি ছেলে–মেয়েদের নিজের পায়ে স্বাবলম্বী করার লক্ষ্যে শহরের নামী তিন শপিং মলের ফুড কোর্টে ক্যাফে পজিটিভের শাখা খোলার কাজ অনেকটাই এগিয়েছে।’‌ তিনি আরও জানান,‘আগামী বছরের জানুয়ারির মধ্যে দুটি ক্যাফের শাখা খুলবে। আমাদের লক্ষ্য আরও ১৫টি শাখা খোলা। এর ফলে ১৫০ জনের মতো কর্মসংস্থান আমরা করতে পারব।’‌ 
এইচআইভি–পজিটিভ আক্রান্ত যুবক–যুবতীদের নিজেদের স্বাবলম্বী হওয়ার উদ্যোগে এই ধরনের ক্যাফে প্রথম হয়  কানাডার টরন্টোতে এবং দ্বিতীয় জার্মানির মিউনিখে। তৃতীয় ভারতের কলকাতায়। যোথপুর পার্কের ক্যাফে পজিটিভের কর্মী থেকে ম্যানেজার সবাই আমন্ত্রণ জানাচ্ছেন কফির আড্ডায়। এইচআইভি আক্রান্তদের হাতে তৈরি বিদেশি ফ্লেভারের ক্যাপুচিনো, এসপ্রেসো এবার বিপ্লব ঘটাবেই। সঙ্গে থাকবে নানা ধরনের স্ন্যাক্স। 

ক্যাফে পজিটিভ–এর স্টল। ফাইল ছবি 

জনপ্রিয়

Back To Top