আজকালের প্রতিবেদন- নাগরিকত্ব সংশোধনী বিল (ক্যাব)–‌এর বিরুদ্ধে বিক্ষোভে সরব কলকাতা। কানহাইয়া কুমার, কান্নন গোপীনাথন, কবিতা কৃষ্ণনদের পাশাপাশি মিলন মান্ডি, আলি ইমরান রাম্‌জ, দেবর্ষি চক্রবর্তী, প্রসেনজিৎ বসুরা জানিয়ে দিলেন, ক্যাব বা এনআরসি দেশের সাংবিধানিক চিন্তাধারার বিরোধী। তাই আওয়াজ উঠল, ‘কালা কানুন ক্যাব, মানছি না, মানব না!‌’ অনেকেই বললেন, হিন্দুরাষ্ট্রের নাম করে বিজেপি হিন্দুদেরই বিপাকে ফেলছে। কেড়ে নেওয়া হচ্ছে মানুষের নাগরিকত্ব।
নাগরিকপঞ্জি–‌বিরোধী যৌথ মঞ্চের ডাকে সোমবার ধর্মতলায় রানি রাসমণি রোডে আয়োজন করা হয়েছিল বিশাল জনসভার। ‘নো এনআরসি, নো ক্যাব’–‌এর দাবিকে সামনে রেখে পাহাড় থেকে সাগর যাত্রার পর এদিন ছিল মূল সমাবেশ। সেখানে উপস্থিত ছিলেন বামপন্থী যুবনেতা কানহাইয়া কুমার, নারী নেত্রী কবিতা কৃষ্ণন, কান্নন গোপীনাথন, আলি ইমরান রাম্‌জ (ভিক্টর), মিলন মান্ডি, দেবর্ষি চক্রবর্তী, শরদিন্দু উদ্দীপন, রঞ্জিত শূর। সভায় সভাপতিত্ব করেন প্রসেনজিৎ বসু। সভায় রাজ্যের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে মানুষ হাজির হন। বার বার স্লোগান ওঠে এনআরসি আর ক্যাব–‌এর বিরুদ্ধে।
কানহাইয়া কুমারের অভিযোগ, মানুষের মৌলিক সমস্যা থেকে দৃষ্টি ঘোরাতেই বিদ্বেষের রাজনীতি করা হচ্ছে। ক্যাব বা এনআরসি আসলে মানুষের মধ্যে বিভেদ ঘটাতেই আনতে চাইছে বিজেপি। কান্নন গোপীনাথনের মতে, হিন্দুদের স্বার্থও আজ বিজেপি–‌র হাতে সুরক্ষিত নয়। মুসলিম–‌বিদ্বেষ বিজেপি–‌র ঘোষিত নীতি। কিন্তু হিন্দুদের বেকুব বানাচ্ছে বিজেপি। হায়দরাবাদে পুলিশের গুলিতে চার ধর্ষক খুন প্রসঙ্গে কবিতা কৃষ্ণন বলেন, ‘আসলি সমস্যার গলত সমাধান’। সেই সঙ্গে উত্তরপ্রদেশে যোগী–‌রাজত্বে ধর্ষণ ও নারী–‌নির্যাতন বেড়ে চলায় তঁার কড়া সমালোচনা করা হয়। ক্যাব–‌এর বিরুদ্ধে আন্দোলন চলবে, জানিয়েছেন সভার সভাপতি প্রসেনজিৎ বসু। কলকাতায় এদিন ক্যাব ও ‌এনআরসি–‌র বিরুদ্ধে প্রতিবাদ জানায় বিভিন্ন সংগঠন।
এদিন কলকাতা প্রেস ক্লাবে ক্যাব–‌এর বিরুদ্ধে একাধিক সংগঠন গর্জে ওঠে। অভিযোগ করা হয়, মুসলিম–‌বিদ্বেষের সঙ্গে হিন্দুদেরও নাগরিকত্ব কেড়ে নিয়ে শরণার্থী করার চেষ্টা হচ্ছে। তার বিরুদ্ধে লোকসভায় সোমবার তৃণমূলের ভূমিকার প্রশংসা করেন জামায়ত ইসলামি হিন্দ নেতা মওলানা আবদুল রফিক, ফোরাম ফর ডেমোক্র‌্যাসি অ্যান্ড কমিউনাল অ্যামিটির আবদুল আজিজ, মুসলিম পার্সোনাল ল বোর্ডের সদস্য মওলানা আবদুল তালিব রহমানি, কবি ও সাহিত্যিক প্রসূন ভৌমিক প্রমুখ। আবদুল আজিজের আশঙ্কা, ‘দুই গুজরাটি ভারতকে গৃহযুদ্ধের দিকে ঠেলে দিচ্ছেন।’‌ প্রসূন সকলকে সতর্ক করে দিয়ে বলেন, ক্যাব ও এনপিআর (ন্যাশনাল পিপ্‌লস রেজিস্ট্রেশন) নিয়ে অপপ্রচার চলছে। এর বিরুদ্ধে সজাগ থাকতে হবে। এদিন প্রেস ক্লাবে অন্য একটি অনুষ্ঠানে আত্মপ্রকাশ করে জাতীয় বাংলা সম্মেলন নামে এক সংগঠন। ‌

 

এনআরসি ও ক্যাব–এর বিরুদ্ধে বিক্ষোভ–‌সমাবেশে কানহাইয়া কুমার, কান্নন গোপীনাথন, আলি ইমরান রাম্‌জ, কবিতা কৃষ্ণন প্রমুখ। রানি রাসমণি অ্যাভিনিউয়ে, সোমবার। ছবি:‌ অভিজিৎ মণ্ডল

জনপ্রিয়

Back To Top