আজকালের প্রতিবেদন: বৌবাজারের পঁাচটি পরিবারকে ফ্ল্যাটে রাখার বন্দোবস্ত করল কলকাতা মেট্রো রেল কর্পোরেশন লিমিটেড (‌কেএমআরসিএল)‌। বৃহস্পতিবার তঁাদেরকে হোটেল থেকে ভাড়া করা ফ্ল্যাটে নিয়ে যাওয়া হয়। বিপর্যস্ত এলাকার বাড়ির পরিস্থিতি খতিয়ে দেখার জন্য কেএমআরসিএলের তরফে যে বিশেষজ্ঞ কমিটি গড়া হয়েছে তারা তাদের প্রথম রিপোর্ট বুধবার রাতে জমা দিয়েছে। রিপোর্ট অনুযায়ী ৭০টি বাড়ির পরিস্থিতি খতিয়ে দেখার পর তার মধ্যে ২৭টি বাড়িকে ভেঙে ফেলার সুপারিশ করা হয়েছে। উল্লেখযোগ্য, এর মধ্যে বেশ কয়েকটি বাড়ি ইতিমধ্যেই ভাঙা শুরু হয়েছে। ২৭টি বাড়ি এই ঘটনার ফলে কোনও ক্ষতিগ্রস্ত হয়নি বলে বিশেষজ্ঞ কমিটি জানিয়েছে। ১৬টি বাড়ি নিয়ে কোনও সিদ্ধান্তে আসতে পারেনি তারা।  বৃহস্পতিবার ক্ষতিগ্রস্ত এলাকার পুরপিতা সত্যেন্দ্রনাথ দে জানিয়েছেন, যারা যারা ফ্ল্যাটে থাকতে ইচ্ছুক তাদেরকে ফ্ল্যাটে রাখার প্রক্রিয়া শুরু করা হয়েছে। পঁাচটি পরিবারকে এদিন ফ্ল্যাটে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। আরও বেশ কয়েকটি পরিবার যাওয়ার ইচ্ছা প্রকাশ করেছে। 
এদিনও দুর্গা পিথুরি লেন এবং স্যাকরাপাড়া লেনে ভাঙা বাড়ির ধ্বংসস্তূপ সরানো হয়। একইসঙ্গে বিপজ্জনক বাড়িগুলি ভেঙে ফেলার কাজও চলছিল। ওই দুটি রাস্তার ওপর যে বাড়িগুলি বিপজ্জনক অবস্থায় আছে এবং এখনও ভেঙে ফেলার কাজ শুরু হয়নি সেই বাড়ির বাসিন্দারা এসে পুলিশ ও কেএমআরসিএল কর্তৃপক্ষের কাছে জানতে চাইছিলেন তঁাদের বাড়ি ভাঙার কাজ কবে শুরু হবে।

হোটেল ছাড়ছেন ওঁরা। ছবি: তপন মুখার্জি ‌

জনপ্রিয়

Back To Top