‌আজকালের প্রতিবেদন: হরিদেবপুর ডাকাতির কিনারা এক রাতেই করল পুলিশ। বুধবার চিকিৎসক অরূপকুমার দাসের বাড়িতে ডাকাতি হয়। অরূপবাবুর মেয়ে তখন একাই ছিলেন। হঠাৎই ৩ জন ওই বাড়িতে ঢোকে। তদন্তে নেমে পুলিশ ঐন্দ্রিলা রায়, পবিত্র দেবনাথ ও রূপম সমাদ্দারকে গ্রেপ্তার করে। ঐন্দ্রিলা তার পিসেমশাই অরূপকুমার দাসের বাড়িতে ডাকাতি করতে এসেছিল।
কিছুদিন আগে পিসেমশাই অরূপের কাছে ঐন্দ্রিলা এসে বিদেশে যাওয়ার জন্য ১৯ লক্ষ টাকা চায়। কিন্তু পিসেমশাই জানান, এত টাকা তিনি দিতে পারবেন না। তর্কাতর্কিও হয়। ঐন্দ্রিলা ভাবে, পিসেমশাইয়ের বাড়িতে ডাকাতি করলে, কমপক্ষে ৫০ লক্ষ টাকা হাতানো যাবে। বিদেশ যাওয়া এবং থাকা সহজ হবে। সে তার বয়ফ্রেন্ড রূপম সমাদ্দারকে একথা জানায়। দুজনে ডাকাতির পরিকল্পনা করে। কিন্তু রূপম বলে, তারা দুজন একাজ পারবে না। এজন্য পবিত্র দেবনাথ নামে এক ভাড়াটে খুনিকে ধরে। কয়েক প্রস্থ বৈঠকও হয় তাদের মধ্যে।
এরপর ৩ জনেই টালিগঞ্জে একটি রেস্তোরাঁর সামনে মিলিত হয়। সেখান থেকে ঐন্দ্রিলা আর পবিত্র অরূপবাবুর বাড়িতে যায়। অরূপবাবুর মেয়ের নাম ধরে ডাকে। মামাতো দিদি ও তার বয়ফ্রেন্ড এসেছে দেখে, অরূপবাবুর মেয়ে দরজা খুলে দিতে বলেন পরিচারিকাকে। কেননা সে সময় সে স্নান করছিল। দুজনকে ঘরে বসিয়ে পরিচারিকা জল দেন। এরপর পরিচারিকা রান্নাঘরের দিকে গেলে, ঐন্দ্রিলা ও পবিত্র একটি হাতুড়ি বার করে তার মাথায় মারে। হাতুড়ি ঐন্দ্রিলা নিজেই জোগাড় করে এনেছিল। হাতুড়ির আঘাতে পরিচারিকার আর্ত চিৎকার শুনে অরূপবাবুর মেয়ে বেরিয়ে আসেন। তাঁকেও আক্রমণ করা হয়। আঘাত করা হয়। এরপর ভয় দেখিয়ে আলমারির চাবি খুলে টাকা ও সোনার গয়না লুঠ করা হয়।
লুঠপাট সারার পরে ঐন্দ্রিলা গিয়ে জামা–‌পোশাক বদলায়। এবং রূপমের সঙ্গে দেখা করে। রূপম বলে, যে পোশাক পরে ডাকাতি করতে গিয়েছিল, তা ফেলে দিতে। রূপমের কথা শুনে ঐন্দ্রিলা ওই পোশাক প্লাস্টিকে মুড়ে একটি ভ্যাটে ফেলে দেয়। পুলিশ অরূপবাবুর মেয়ের থেকে বর্ণনা শুনে ৩ জনকেই ধরে ফেলে। জেরায় জানিয়েছে, হাতুড়ির আঘাতে অজ্ঞান হয়ে গেলে ঐন্দ্রিলা ও পবিত্র ভেবেছিল, দুজনেই মারা গেছে। তাই, প্রমাণ নষ্ট করতে চেয়েছিল। ৩৪ বছর বয়সী ঐন্দ্রিলার বাড়ি সোনারপুরের চম্পাহাটিতে। রূপমের সোনারপুরের কোদালিয়ায়। এবং পবিত্রর বাড়ি রামনগর এলাকায়। চুরি হওয়া বেশ কিছু সামগ্রী উদ্ধার হয়েছে। জেরা চলছে।‌‌

 

পুলিশের হাতে ৩ অভিযুক্ত ঐন্দ্রিলা, পবিত্র ও রূপম।

জনপ্রিয়

Back To Top