আজকাল ওয়েবডেস্ক:‌ শনিবারই ১২ কোম্পানি বাহিনী এসেছিল রাজ্যে। খুব শিগগিরই কলকাতায় আরও তিন কোম্পানি বাহিনী এসে পৌঁছবে। লালবাজার সূত্রে এমনটাই জানা গেছে। এই সপ্তাহ থেকেই শহরে শুরু হবে টহল।
শহরে আসার পরে জওয়ানদের রাখা হবে কাশীপুরের সেকেন্ড ব্যাটেলিয়নের অফিস এবং এ জে সি বসু রোডের পুলিশ ট্রেনিং স্কুলে। সেখান থেকেই তাদের মোতায়েন করা হবে কলকাতা পুলিশের ন’টি ডিভিশনে। এক পুলিশকর্তা জানান, ৭২টি থানা এলাকার কোথায়, কত বাহিনী সকালে ও বিকেলে রুট মার্চ করবে, তা ঠিক করবেন ডিভিশনাল ডেপুটি কমিশনারেরা। 
বিধানগর সহ রাজ্যে বিভিন্ন জেলায় যদিও ইতিমধ্যেই টহলদারি শুরু করে দিয়েছে সেনা। যদিও প্রথম ধাপে শহরে বাহিনী আসেনি। এবার আসবে। খবর, মার্চের শুরুতে ভোটের দিনক্ষণ ঘোষণা করবে নির্বাচন কমিশন। তার আগে রাজ্যের সর্বত্র যাতে বাহিনী মজুত থাকে, সেদিকেই নজর রাখছে কমিশন। 
পুলিশ সূত্রের খবর, এক-একটি কোম্পানিতে আটটি করে সেকশন থাকে। সেই হিসেবে তিন কোম্পানি এসএসবি-র ২৪টি সেকশনকে ৭২টি থানার মধ্যে ভাগ করে দেওয়া হতে পারে। তবে কেন্দ্রীয় বাহিনী এলেও তাদের নিয়ন্ত্রণ থাকবে পুলিশের হাতে। পুলিশই ঠিক করবে, কোথায় কোথায় রুট মার্চ করানো হবে।
এখনও ভোট ঘোষণা হয়নি। তবে তার আগেই শহরের বিভিন্ন জায়গায় অল্পবিস্তর ঝামেলা, হিংসা চলছে। গত সপ্তাহেই বেলেঘাটা এবং ফুলবাগান থানা এলাকা উত্তপ্ত হয়ে উঠেছিল দুই দলের সংঘর্ষে। যাতে জখম হন এক পুলিশ অফিসারও। এসব নিয়ন্ত্রণে আনতেই কেন্দ্রীয় বাহিনীর ব্যবস্থা। 

জনপ্রিয়

Back To Top