সমীর দে
ঢাকা, ২৭ নভেম্বর

একাত্তরের স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্রের শব্দসৈনিক অভিনেতা, নির্দেশক আলী যাকের (‌৭৬)‌ মারা গেলেন। ৪ বছর ক্যান্সারের সঙ্গে লড়ছিলেন। দু’‌দিন আগে করোনা হানা দেয়। ঢাকার ইউনাইটেড হাসপাতালে শুক্রবার ভোরে মারা যান। তাঁর প্রতি রাষ্ট্রীয় সম্মান জানানো হয়েছে ঢাকার শেরেবাংলা নগরে মুক্তিযুদ্ধ যাদুঘরে। তিনি ছিলেন এ প্রতিষ্ঠানের অন্যতম ট্রাস্টি। জাতীয় পতাকায় মোড়া আলী যাকেরের কফিনে গার্ড অফ অনার দেওয়া হয়। নাটকে অবদানের জন্য ১৯৯৯ সালে সরকার তাঁকে একুশে পদকে ভূষিত করে। এছাড়া বাংলাদেশ শিল্পকলা অ্যাকাডেমি পুরস্কার, বঙ্গবন্ধু পুরস্কার, মুনীর চৌধুরী পদক, নরেন বিশ্বাস পদক–সহ বিভিন্ন সম্মাননা পেয়েছেন তিনি। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, ‘মহান মুক্তিযুদ্ধ, দেশের শিল্পকলা ও সাংস্কৃতিক অঙ্গনে আলী যাকেরের অবদান স্মরণীয় হয়ে থাকবে।’‌‌ গত শতকের সাত থেকে নয়ের দশকে মঞ্চ আর টেলিভিশনে দাপুটে অভিনয়ের জন্য দর্শক–হৃদয়ে স্থায়ী আসন গড়েছিলেন। ক্যান্সার নিয়েই ২০১৮ সালের ১৪ অক্টোবর ঢাকার জাতীয় শিল্পকলা অ্যাকাডেমির এক্সপেরিমেন্টাল থিয়েটার হলে ‘গ্যালিলিও’ নাটকে তিনি নামভূমিকায় অভিনয় করেন। তাঁর স্ত্রী অভিনেত্রী সারা যাকের মুক্তিযুদ্ধ যাদুঘরে শ্রদ্ধা নিবেদন অনুষ্ঠানে বলেন, ‘তিনি ক্যান্সারে আক্রান্ত হওয়ার পরে বলে গিয়েছিলেন, গ্যালিলিও হবে আমার করা শেষ কাজ। তিনি তা করে যেতে পেরেছিলেন। ধন্যবাদ সকলকে, যাঁরা দীর্ঘ যাত্রায় আমাদের সঙ্গে ছিলেন।’ আলী যাকেরের প্রতি শ্রদ্ধা জানাতে মুক্তিযুদ্ধ যাদুঘরে এসেছিলেন অভিনেত্রী ফেরদৌসী মজুমদার, আসাদুজ্জামান নূর, সারওয়ার আলী, মামুনুর রশীদ, তারিক আনাম–সহ অনেকেই, যাঁরা ছিলেন আলী যাকেরের সহযোদ্ধা, সহকর্মী। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে লেখাপড়া শেষ করে করাচিতে একটি বিজ্ঞাপন সংস্থায় কর্মজীবন শুরু করেন আলী যাকের। স্বাধীনতার পর ১৯৭২ সালে তিনি এশিয়াটিকের দায়িত্ব নেন, মৃত্যুর সময় তিনি কোম্পানির গ্রুপ চেয়ারম্যান ছিলেন। মুক্তিযুদ্ধ শুরু হলে আলী যাকের প্রথমে ভারতে গিয়ে যুদ্ধের প্রশিক্ষণ নেন। চলচ্চিত্র পরিচালক ও সাংবাদিক আলমগীর কবির তাঁকে উদ্বুদ্ধ করেন প্রচারযুদ্ধে অংশ নিতে। আলী যাকের যুক্ত হন স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্রে। ‘অচলায়তন’, ‘বাকী ইতিহাস’, ‘সৎ মানুষের খোঁজে’, ‘তৈল সংকট’, ‘এই নিষিদ্ধ পল্লীতে’, ‘কোপেনিকের ক্যাপ্টেন’–সহ বেশ কয়েকটি মঞ্চনাটকের নির্দেশনা দিয়েছেন আলী যাকের। বেতারে অর্ধশতাধিক শ্রুতিনাটকেও কাজ করেছেন।
 

জনপ্রিয়

Back To Top