আজকাল ওয়েবডেস্ক:‌ ভারতীয় বংশোদ্ভূত দোকানদারকে খুনের দায়ে চার বছরের কারাদণ্ড হল ১৬ বছরের কিশোরের। ইংল্যান্ডের ওল্ড বেইলি কোর্টের বিচারক স্টুয়ার্ট স্মিথ স্থানীয় সময় গত শুক্রবার এই রায় দেন। রায় পড়ার সময় হত্যাকারী কিশোরকে তিনি ‘‌টাইম বোমা’‌ বলে উল্লেখ করে বলেন, তদন্তের প্রাথমিক রিপোর্টে কোথাও তাঁর মনে হয়নি, মৃতের কাছ থেকে চরম বিপদের আশঙ্কাতেই তাঁকে হত্যা করতে হয়েছে। বিচারক রায়ে আরও বলেছেন, মুক্তির পর আরও তিন বছর ওই কিশোরকে পুলিসি নজরদারিতে থাকতে হবে।
গত ৬ জানুয়ারি, উত্তর লন্ডনের মিলহিলের মিনি মার্কেটে বিজয়কুমার প্যাটেলের দোকানে সিগারেট পেপার কিনতে এসেছিল খুনি কিশোর এবং তার দুই বন্ধু। কিন্তু ১৮ বছরের নিচে হওয়ায় তাকে সিগারেট পেপার বিক্রি করতে চাননি ৪৯ বছরের প্রবাসী ভারতীয় বিজয়কুমার। এরপরই ওই কিশোর তাঁকে বেদম প্রহার করে। মাথার পিছনে গুরুতর চোট পান বিজয়। হাসপাতালে নিয়ে গেলে পরদিন তাঁর মৃত্যু হয়। তদন্তে নেমে দোকানের সিসিটিভি ফুটেজ দেখে কিশোরকে গ্রেপ্তার করে পুলিস। বিচার চলাকালীন গত জুলাইয়ে নিজেকে বেকসুর বলে দাবি করে ওই কিশোর আদালতে বলেছিল, আত্মরক্ষার খাতিরেই সে বিজয়কে ধাক্কা মেরেছিল। বিচারক তখন বলেন, সিসিটিভি ফুটেজে পরিষ্কার দেখা যাচ্ছে বিজয় শুধু পকেটে হাত দিয়ে চুপচাপ দাঁড়িয়ে ছিলেন। অভিযুক্তই তাঁকে ধাক্কা দিয়ে মাটিতে ফেলে মারতে থাকে।
বিজয় লুটিয়ে পড়লে দোকানের আরেক কর্মী ওই কিশোর এবং তার বন্ধুদের ধাওয়া করেন। কিন্তু তারা চম্পট দেয়। সিসিটিভি ফুটেজে দেখা গিয়েছে পালাতে পালাতেই অনুসরণকারীকে নিয়ে ব্যঙ্গ করছে তিনজন। আদালতে বিজয়ের আইনজীবী জানান, যেহেতু তাঁর পরিবার ভারতে আছে সেহেতু তারা কোনও বিবৃতি জমা দিতে পারেনি আদালতে। পুলিসি রিপোর্টের ভিত্তিতেই রায় শোনান বিচারক। আদালতে পুলিস এও জানায়, খুনি কিশোর অ্যাটেনশন ডেফিসিট হাইপার অ্যাক্টিভিটি বা হঠাৎ উত্তেজিত হয়ে পড়া রোগ এবং উপস্থিত বুদ্ধির অভাবে ভুগছে। এর আগেও অস্ত্র নিয়ে ঘোরাফেরা করা এবং স্কুলের এক শিক্ষককে মারধরের অভিযোগ রয়েছে তার বিরুদ্ধে। তবে বিজয়কুমারের মৃত্যুর ঘটনায় পরে বিচারককে আক্ষেপ জানিয়ে সে চিঠি লিখেছিল বলে দাবি করেছেন কিশোরের আইনজীবী।

জনপ্রিয়

Back To Top