‌আজকাল ওয়েবডেস্ক:‌ বড়সড় প্রাকৃতিক দুর্যোগের সামনে দাঁড়িয়ে জাপান। মঙ্গলবার রাতে জাপানের উপকূলবর্তী এলাকায় আছড়ে পড়তে পারে সুপার টাইফুন জেবি। প্রাণহানি এড়াতে ইতিমধ্যেই দশ লক্ষের বেশি নাগরিককে নিরাপদ স্থানে সরানো হয়েছে। বাতিল করা হয়েছে ৭০০টিরও বেশি বিমানের উড়ান। ইতিমধ্যেই প্রবল বৃষ্টিতে বিধ্বস্ত হয়েছে জনজীবন। ওসাকা এবং কানসাইয়ের মতো অতি গুরুত্বপূর্ণ বিমানবন্দর জলমগ্ন হয়েছে। বৃষ্টির পাশাপাশি ঘটেছে বন্যা ও ভূমিধসের মতো ঘটনাও। বিশেষজ্ঞদের মতে ১৯৬১ সালের পরে এটাই হতে চলেছে জাপানের ইতিহাসে সবচেয়ে বড় টাইফুন। ঝড়ের দাপটে ইতিমধ্যে শিকোকুতে মঙ্গলবার দুপুরে শিকোকু শহরে ভূমিধসের জেরে যানচলাচল বিপর্যস্ত হয়ে গিয়েছে। সোশ্যাল মিডিয়ায় একটি ভিডিও ভাইরাল হয়েছে, যেখানে দেখা যাচ্ছে কোয়োটো শহরে জলমগ্ন অবস্থায় কীভাবে সারসার ট্রেন দাঁড়িয়ে রয়েছে। টোকিও থেকে হিরোশিমার মধ্যে বুলেট ট্রেন পরিষেবাও বন্ধ রাখা হয়েছে। হোনসু, কোবে–র মতো শহরগুলির অবস্থাও খুবই খারাপ। 
ঝড় আসার আগেই ২০৮ কিলোমিটার প্রতি ঘণ্টা বেগে হাওয়া বইয়ে শিকোকু শহরে। সেনা, দমকল, বিপর্যয় মোকাবিলা বিভাগের পাশাপাশি তৈরি রাখা হচ্ছে চিকিৎসকদের দলও। বিদ্যুৎসংযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে গিয়েছে প্রায় দু’‌লক্ষ বাড়িতে।

জনপ্রিয়

Back To Top