আজকাল ওয়েবডেস্ক:‌ ইউহান থেকে গোটা বিশ্বে ছড়িয়ে পড়া এই কোভিড–১৯ মহামারির আকার নেওয়ায় প্রত্যক্ষ এবং পরোক্ষ ভাবে চীনের উপর চাপ বাড়াচ্ছে আমেরিকা। এমনকি করোনাকে চীনা ভাইরাস বলতেও পিছপা হয়নি মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার উপরও একাধিকবার বিরক্তি প্রকাশ করেছেন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। আমেরিকার দাবি, হু এতকিছুর পরেও চীনের পাশে দাঁড়িয়েছে। কোভিড–১৯ সংক্রমণে চীনে কতজন মারা গেছেন, তার সঠিক তথ্য বিশ্বকে দেওয়া হয়নি। এরইমধ্যে সোমবার এই ভাইরাসের উৎস সম্পর্কে জানতে চেয়েছে ৩৫ দেশ। সঙ্গে ইওরোপীয় ইউনিয়নের ২৭–সদস্য দেশেরও একই প্রশ্ন। রাষ্ট্রপুঞ্জ নিরাপত্তা পরিষদের পাঁচ স্থায়ী সদস্য দেশের তিনটি— ব্রিটেন, ফ্রান্স, রাশিয়াও আছে এই প্রশ্নকারীদের মধ্যে। আছে জাপান, অস্ট্রেলিয়া, দক্ষিণ কোরিয়া, নিউজিল্যান্ড, দক্ষিণ আফ্রিকা, তুরস্ক ও ভারত। বাকি সার্ক সদস্য–‌দেশগুলির মধ্যে বাংলাদেশ ভুটানেরও এই একই প্রশ্ন।  
হু’‌র কাছে এই জবাবদিহি চাওয়ার পরেই রীতিমতো জোর পেয়ে গেছে আমেরিকা। সোমবারই বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থাকে রীতিমতো হুমকি ভরা চিঠি পাঠিয়েছেন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। এর আগেই সাময়িকভাবে হু’‌কে অর্থসাহায্য বন্ধ করেছিল আমেরিকা। এবার পরিষ্কার বলে দেওয়া হয়েছে, ‘‌গোটা পরিস্থিতির সঠিক পর্যালোচনা না করলে অর্থসাহায্য একেবারেই বন্ধ করে দেওয়া হবে। আগামী ৩০ দিনের মধ্যে যদি পরিস্থিতির উন্নতি না হয়, তাহলে অর্থসাহায্য বন্ধ তো হবেই, এমনকি বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থায় মার্কিন সদস্যপদ নিয়েও ভাবা হবে।’‌ অর্থাৎ হু থেকে বেরিয়ে আসার হুমকি দিলেন ট্রাম্প। 
হু’‌প্রধান টেড্রোস আধানম ঘেব্রেইসুসকে সরাসরি চিঠিতে ট্রাম্প বলেছেন, ‘‌আমার প্রশাসন এই বিষয়ে আলোচনা শুরু করেছে। দ্রুত করোনা মোকাবিলায় যথাযথ ব্যবস্থা না নিলে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার সদস্যপদ থেকে বেরিয়ে আসবে আমেরিকা।’‌ 
এটা ঘটনা যে ইতিমধ্যেই আমেরিকায় এই মারণ ভাইরাসে ৯০ হাজার এর বেশি মানুষ মারা গেছেন। 

জনপ্রিয়

Back To Top